৪, আগস্ট, ২০২১, বুধবার

আবু ত্ব-হাকে নিয়ে সংবাদ না করায় সময় টিভির ‘পদ’ ছেড়েছেন আয়াস!

সময় টিভির কর্মী পরিচয়ে সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে ভুয়া পোস্ট করায় আয়াস ইবনে আবেদিন জয় নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরি করেছে সময় টিভি কর্তৃপক্ষ।

জয় নামের ওই ব্যক্তি নিজেকে সময় টিভির ‘অনলাইন রিপোর্ট রাইটার’ দাবি করে সেই পদ থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগের ঘোষণা দিয়ে ফেসবুকে ১৪ জুন তারিখে একটি পোস্ট দেন। সম্প্রতি ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা আদনানের নিখোঁজের বিষয়ে তিনি সময় নিউজে সংবাদ প্রকাশের অনুরোধ করেন এবং তার অনুরোধ রাখা হয়নি দাবি করে এই স্ট্যাটাস দেন।

যদিও জয় নামের ওই ব্যক্তির কোনো সম্পৃক্ত ছাড়াই সময় নিউজে আবু ত্ব-হাকে নিয়ে ‘ত্ব-হা আদনান নিখোঁজ, সন্ধান চেয়ে জিডি’ শিরোনামে খবর প্রকাশিত হয়েছে। এ ছাড়া জয়ের সঙ্গে সময় টিভির কোনো সম্পর্ক নেই এবং সময় টিভির প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আজ পর্যন্ত এই নামের কোনো ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানটির কোনো এলাকার কোনো পর্যায়ের কর্মী ছিলেন না, এখনো নেই।

এদিকে আজ বুধবার (১৬ জুন) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাজ্জামান খান কামাল বলেছেন আবু ত্ব-হা আদনান নিখোঁজের বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে রয়েছে। তার নিখোঁজের রহস্য উদঘাটন করা হবে। এই নিউজটিও সময় টিভি ‘ত্ব-হা নিখোঁজের রহস্য উদঘাটন করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী’ শিরোনামে প্রকাশ করেছে।

জয়ের স্ট্যাটাসটি অল্প সময়ের মধ্যে সামাজিকমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিষয় সময় কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিগোচর হয়। এ বিষয়ে সময় টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ কলাবাগান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছে যার নং- ৮২৫। ডায়েরিতে বলা হয়েছে, আয়াস ইবনে আবেদীন জয় নামের এক ব্যক্তি একটি সংঘবদ্ধ চক্রান্তের অংশ হিসেবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সময় টিভিকে হেয় করার উদ্দেশ্যে নিজেকে মিছেমিছি সময় টিভির কর্মী দাবি করে, আবার তার পদত্যাগের গল্প সাজিয়ে তা ফসবুক পোস্ট করেছে এবং তা ইতোমধ্যে ভাইরাল হয়েছে।

ডায়েরিতে আরও বলা হয়েছে, এই নামে সময় টিভিতে বিগত দশ বছর ধরে কোনো কর্মী চাকরিরত ছিলেন না, সময় টিভিকে জড়িয়ে এই মিথ্যা দাবির মূল উদ্দেশ্যই হচ্ছে দেশের প্রথম সারির এই সংবাদমাধ্যমকে বিরূপ প্রচারণার কেন্দ্রবিন্দুতে আনা।

এর আগে জয় তার পোস্টে জয় লেখেন, “একজন মুসলমান হিসেবে যেখানে আমার ভাই (আদনান) গত ৪ দিন ধরে নিখোঁজ থাকার পরেও এখনো কোনো মিডিয়া সংবাদ করেছে না এমনকি ‘সময় নিউজ’ টিভি এই সংবাদ চ্যানেলে ‘অনলাইন রিপোর্ট লেখক’ হিসেবে কাজ করার পরও তাকে নিয়ে সংবাদ করার অনুরোধ রাখল না, সেখানে আজকের পর থেকে আমার কাজ করার কোনো অধিকার থাকে না।

যেখানে ইসলামের মর্যাদা নাই, সেখানে আমার থাকার কোনো প্রশ্ন আসে না। তাই আমি সম্মতিক্রমে নিজের স্ব-ইচ্ছায় (Online Report Writer) পদের এই কাজ থেকে সড়ে দাঁড়ালাম। আমার কাছে ইসলাম বড়, দুনিয়ার জীবনের এই চাকরি নয়।”

এ বিষয়ে জয়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, তিনি সময় টিভির নিউজ ফেসবুকে নিয়মিত শেয়ার দেন। সে জন্য তিনি ২০১৮ সালে নিজের ফেসবুক প্রোফাইলের এবাউট সেকশনে ‘অনলাইন রিপোর্ট রাইটার’ পদে নিজেই নিজেকে দায়িত্ব দেন।

তিনি আরও জানান, তাকে অফিসিয়ালি সময় টেলিভিশন কর্তৃপক্ষ কোনো নিয়োগ দেওয়া হয়নি ও এই নামে তার কোনো পদবিও নেই। তিনি তার ভুল স্বীকার করে পোস্টটি ডিলিট করে দিয়েছেন এবং বলেছেন, তিনি ক্ষমাপ্রার্থী হয়ে একটা স্ট্যাটাসও দেবেন।

সর্বশেষ নিউজ