২৩, সেপ্টেম্বর, ২০২১, বৃহস্পতিবার

আর্জেন্টিনার জয়ের গল্প

ম্যাচ শুরুর আগে। কিছু শঙ্কা, কিছু ভয়। আগের ম্যাচের চিলির বিপক্ষে ড্র করতে হয়েছে। আজ জয় ছাড়া অন্য কোনো ফল এলে নকআউট পর্বে ওঠা নিয়েই ঝামেলা বেধে যাবে। জাতীয় সংগীত গাওয়ার সময়ে হয়তো এসবই ভাবছিলেন মেসিরা!

গত ম্যাচের মতো এ ম্যাচেও মূল একাদশে সুযোগ পাননি আনহেল দি মারিয়া। তাঁর জায়গায় খেলানোর জন্য কোচ লিওনেল স্কালোনি পছন্দ করেছেন স্টুটগার্টের নিকোলাস গঞ্জালেসকে। তাই বুঝি পিএসজি তারকার মন একটু খারাপ!

প্রথম থেকেই মেসি ছিলেন অপ্রতিরোধ্য। জয়ের তাড়নাটা যেন অধিনায়কের মধ্যেই সবচেয়ে বেশি ছিল।

গোলের সেই মুহূর্ত। ১৩ মিনিটে মাঠের বাঁ প্রান্ত থেকে ডি-বক্সে নিখুঁত ক্রস ফেলেছিলেন মেসি। সেই ক্রস গিয়ে পড়ে দলের রক্ষণাত্মক মিডফিল্ডার গিদো রদ্রিগেজের মাথায়। ক্রসটি এতই নিখুঁত ছিল যে কোনোভাবে একটু মাথা ঠেকাতে পারলেই গোল হয়ে যেত। গিদো রদ্রিগেজের সে কাজটা করতে ভুল হয়নি একদম।

লিয়ান্দ্রো পারেদেস সুস্থ থাকলে হয়তো এ ম্যাচেও খেলা হতো না গিদো রদ্রিগেজের। শেষ মুহূর্তে মূল একাদশে সুযোগ পেয়েই বাজিমাত করেছেন। রিয়াল বেতিস মিডফিল্ডারের আনন্দ তো এমন বাঁধনহারা হবেই

গোলের পর আর্জেন্টাইন খেলোয়াড়দের উল্লাস। পাশ থেকে হতাশাভরে যা দেখছেন উরুগুয়ের স্ট্রাইকার এদিনসন কাভানি

বন্ধু তুমি, শত্রু তুমি—দুই পরম বন্ধু লিওনেল মেসি আর লুইস সুয়ারেজের আবারও দেখা হয়েছিল খেলার মাঠে। কিন্তু জাতীয় দলের জার্সি গায়ে আবার কিসের বন্ধুত্ব? সেখানে দেশের প্রতি প্রেম বড়, বড় পেশাদারত্ব।

গোটা ম্যাচে কাভানি ছিলেন নিশ্চুপ। যে স্ট্রাইকার গত মৌসুমেই ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে বেশ কিছু গোল করে দলকে উদ্ধার করেছেন, দেশের ডাকে সেই স্ট্রাইকারের পা বা মাথা, কোনোটাই কথা বলল না।

এক গোলের লিড কখনোই সুবিধাজনক না। আর্জেন্টিনা নিজেও বেশ কিছু গোল করার সুযোগ নষ্ট করেছে পরে। এ অবস্থায় আবার গোল খেয়ে বসলে সমস্যা হয়ে যেত। এগিয়ে গিয়ে পরে গোল খেয়ে ম্যাচ ড্র করার অভ্যাসটা যে আর্জেন্টিনা শেষ কয়েক ম্যাচে বেশ ভালোই গড়ে তুলেছে! তাই হয়তো এগিয়ে থেকেও চিন্তার শেষ ছিল না কোচ লিওনেল স্কালোনির।

গোটা ৯০ মিনিট মেসিকে আটকে রাখা যাচ্ছিল না। দুর্ভাগ্য, তাঁর পাসগুলো গোলে রূপান্তরিত করতে পারেননি লাওতারোরা।

ম্যাচের শেষ দিকে এসে বেপরোয়া উরুগুয়ের কাছ থেকে ফাউলের শিকারও হয়েছেন মেসি। তাতেও পরম আরাধ্য জয়টা হাতছাড়া হয়নি যদিও।

ম্যাচের পর স্বস্তির জয় নিয়ে দলের উল্লাস। দি মারিয়া, রোমারো, ওতামেন্দি, গঞ্জালেসরা নির্ভার। সামনের লক্ষ্য এখন প্যারাগুয়ে।

সর্বশেষ নিউজ