২২, সেপ্টেম্বর, ২০২১, বুধবার

আশাশুনি উপজেলার কুল্যায় স্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ভিজিডি কার্ড বিতরণের অভিযোগ

আশাশুনি ব্যুরো : আশাশুনি উপজেলার কুল্যা ইউনিয়নের কুল্যা গ্রামে ভালনারেবল গ্রুপ ডেভেলপমেন্ট (ভিজিডি) কার্ড গরীব, অসহায়, অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে না দিয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ভিজিডি পরিপত্র অমান্য করে ধর্ণাঢ্য ও স্বচ্ছল পরিবারের মাঝে বিতরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।
অফিসিয়াল সূত্রে জানা গেছে ২০২১/২২ অর্থ বছরে কুল্যা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডে ৪২ জন মহিলার নামে ভিজিডি তালিকা প্রস্তুত করা হয়।

ভিজিডি তালিকা সূত্রে সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে চলমান তালিকার (ছক-৩) চৌদ্দ নাম্বার উপকারভোগী আর্জিনা খাতুনের পাকা ২তলা বিশিষ্ট বাড়ী এবং বাড়ীর ছাদে এসি বসানো। এছাড়া ভিজিডি তালিকার ১ নাম্বারের শারমিন বেগম, ২ নাম্বারের রাশিদা খাতুন, ৯ নাম্বারের তাসলিমা বেগম, ১৮ নাম্বারের সুচিত্রা মন্ডল, ২১ নাম্বারের সেলিনা খাতুন, ২৪ নাম্বারের বিথী পারভীন, ৩০ নাম্বারের অঞ্জনা রায়, ৩৪ নাম্বারের রোজিনা বেগম, ৩৬ নাম্বারের চন্দনা মন্ডল, ৩৭ নাম্বারের ইছামতি সরকার, ৪০ নাম্বারের লাইলী বেগম সহ তালিকায় আরও অনেকে পাকা বাড়িতে, আবার অনেকেই আলিশান বাড়িতে বসবাস করে এবং আর্থিক স্বচ্ছতার মধ্যে তারা জীবিকা নির্বাহ করে থাকে।

অথচ পরিপত্রের অন্তর্ভুক্ত শর্তাবলির ২ নাম্বার অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে উপকারভোগী কর্মক্ষম, দুস্থ, তালাক প্রাপ্ত, স্বামী পরিত্যক্তা, বা পরিবারের কোন সদস্যের আয়ের উৎস নেই।
অগ্রাধিকার শর্তাবলির ১ নাম্বার অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে ১৫ শতকের বেশি জমি না থাকা, ৪ নাম্বার অনুচ্ছেদে উল্লেখ আছে বাড়িতে মাটি, পাটকাঠি বা বাঁশের দেওয়াল থাকতে হবে। কিন্তু মন্ত্রণালয়ের এসকল নির্দেশনা অনুসরণ না করে দুস্থ মহিলা বা অসহায় পরিবারকে বাদ দিয়ে ধর্ণাঢ্য ও স্বচ্ছল পরিবারের নাম ভিজিডি তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে সে সকল স্বচ্ছল পরিবারের মাঝে ভিজিডি’র খাদ্য শস্য বিতরণ করা হয়েছে বলে জানাগেছে।

অন্যদিকে ইউনিয়ন পরিষদের চিহ্নিত দালাল কুল্যা গ্রামের লিটন ঢালী, কাইয়ুম হোসেন এবং গ্রাম পুলিশ কওছার আলী কুল্যা গ্রামের একাধিক পরিবারের নিকট থেকে ভিজিডি’র কার্ড দেওয়ার নাম করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। এমতাবস্থায় উক্ত ভিজিডি তালিকা থেকে ধর্ণাঢ্য ও স্বচ্ছল পরিবারের নাম বাদ দিয়ে প্রকৃত অসহায়, গরীব, দুস্থ, কর্মক্ষম পরিবারের সদস্যের নাম অন্তর্ভুক্ত করে নতুন তালিকা প্রকাশ করতে এবং ইউনিয়ন পরিষদের নাম ভাঙ্গিয়ে গ্রামে চাঁদাবাজির ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত সহ চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগী ও স্থানীয় সচেতন মহল।

সর্বশেষ নিউজ