৭, জুলাই, ২০২২, বৃহস্পতিবার

উত্তরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, মধ্যাঞ্চলে নদীভাঙন শুরু

দেশের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতির দিকে। কারণ এসব এলাকার প্রধান প্রধান নদীর পানি সমতলে বাড়ছে। তাই কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট ও গাইবান্ধা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, জামালপুরে বন্যায় নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। এছাড়া মধ্যাঞ্চলের জেলা টাঙ্গাইলে বন্যায় প্লাবিত হয়েছে শতাধিক গ্রাম। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দেও থেমে নেই পানি বৃদ্ধি। সেখানে প্রবল স্রোতের কারণে ধীরগতিতে চলছে ফেরি। এদিকে মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার চরাঞ্চলে শুরু হয়েছে নদীভাঙন। এরই মধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে হাজারেরও বেশি বাড়িঘর।

এছাড়া দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এতে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, রাঙ্গামাটি ও বান্দরবানে নদ-নদীর পানি দ্রুত বৃদ্ধির আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, ৯ উপজেলার বন্যাকবলিত মানুষের জন্য ৩৩৮ টন চাল, নগদ ১৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ১ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, ১৮ লাখ ৯৫ হাজার টাকার শিশুখাদ্য ও ১৭ লাখ ৭৫ হাজার টাকার গো-খাদ্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে, যার বিতরণ কার্যক্রম চলমান। কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্ল্যাহ আল মামুন জানান, ব্রহ্মপুত্র ও ধরলার পানি বিপত্সীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পানি কমার সম্ভাবনা রয়েছে।

এদিকে বগুড়া জেলায় টানা বৃষ্টির কারণে যমুনা নদীতে আরো এক দফা পানি বেড়েছে। গতকাল দুপুর ৩টায় জেলার সারিয়াকান্দি উপজেলার যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৫৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। পানি বেড়ে নতুন করে আরো লোকালয় প্লাবিত হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পানি ঢুকে পড়ায় বন্ধ হতে শুরু করেছে পাঠদান।

বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, গত কয়েকদিনে যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়ে বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। এখন পর্যন্ত ৮৭টি গ্রামে পানি ঢুকেছে। ২৩ হাজার ৯০০ পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ১ লাখ ১৭ হাজার ৩০০ মানুষ পানিবন্দি জীবনযাপন করছে। ৭ হাজার ৯০৫ হেক্টর জমির ফসল বন্যায় তলিয়ে গেছে। সারিয়াকান্দি উপজেলার বন্যানিয়ন্ত্রণ বাঁধে পাঁচ শতাধিক পরিবার আশ্রয় নিয়েছে। মানুষের সঙ্গে গৃহপালিত প্রাণীও রয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, বন্যায় উপজেলার তেকানী চুকাইনগর, পাকুল্লা, জোড়গাছা ও মধুপুর ইউনিয়নের ৫৩২ হেক্টর ফসলের খেত আক্রান্ত হয়েছে। এদিকে জেলার ধুনট উপজেলায় নতুন করে চরাঞ্চলের পাশাপাশি লোকালয় প্লাবিত হতে শুরু করেছে। পানি বাড়ার কারণে নদী এলাকায় ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে।

রাজবাড়ী দেশের গুরুত্বপূর্ণ নৌ-রুট রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় তীব্র স্রোতে ফেরি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। দৌলতদিয়া ঘাটের জিরো পয়েন্ট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের পদ্মার মোড় পর্যন্ত সাড়ে ৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যাত্রীবাহী বাস, প্রাইভেটকার ও পণ্যবাহী ট্রাকের সারি তৈরি হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড গোয়ালন্দ উপজেলার পানি পরিমাপক ইদ্রিস আলী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় পদ্মার পানি রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া পয়েন্টে ১৩ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে নদীতে প্রচণ্ড স্রোত তৈরি হয়েছে। বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) প্রফুল্ল চৌহান জানান, পদ্মায় পানি বৃদ্ধি ও তীব্র স্রোতে ফেরির ট্রিপ কমে গেছে, যে কারণে ঘাটে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে।

সর্বশেষ নিউজ