২৮, অক্টোবর, ২০২১, বৃহস্পতিবার

করোনায় আক্রান্ত হলেই ডাক্তারের পরামর্শে থাকতে হবে

স্টাফ রিপোটার:
করোনা রোগী বেড়ে যাওয়ার পর থেকে হাসপাতালে সিট পাওয়া যাচ্ছে না। বাইরে না গিয়ে ঘরেই অবস্থান করতে হবে এবং করোনা পজিটিভ হওয়ার পর থেকেই চিকিৎসকের পরামর্শে থাকতে হবে। এমতাবস্থায় শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে বুকের সিটি স্ক্যান করে রাখা উচিত বলে পরামর্শ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় রিউমাটোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা: শামীম আহমেদ।

তিনি বলেন, সিটি স্ক্যানে বুকের অবস্থা স্পষ্ট ধরা পড়ে। ফলে চিকিৎসকের কাছে সিটি স্ক্যান রিপোর্ট থাকলে করোনা রোগীদের সহজে এবং দ্রুততম সময়ে চিকিৎসা দেয়া সম্ভব।

ডা: শামীম আহমেদ নয়া দিগন্তকে বলেন, ইদানীং করোনা আক্রান্ত হলেও আরটি পিসিআর পরীক্ষায় নেগেটিভ আসছে। এর অনেকগুলো কারণের একটি হলো নাকের যে স্থানে ভাইরাস থাকতে পারে সেখান থেকে সোয়াব (শ্লেষ্মা) নিতে পারছেন না সংগ্রহকারী। ফলে করোনা আক্রান্ত হলেও পরীক্ষায় নেগেটিভ রিপোর্ট আসছে। সে কারণে অভিজ্ঞ সোয়াব সংগ্রহকারী হলে ভালো হয়। আবার করোনাভাইরাসের ঘনত্ব (কনসেনট্রেশন) কম হলে আরটি পিসিআর পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট এসে থাকে। ডা: শামীম আহমেদ জানান, এখন বলা হচ্ছে, করোনার নতুন ভেরিয়েন্টগুলো শ্লেষ্মা পরীক্ষায় পাওয়া যায় না। বাংলাদেশে এ নিয়ে ব্যাপক গবেষণা হয়নি তবে ইউরোপ-আমেরিকার গবেষকরা বলছেন, নতুন ভেরিয়েন্ট নাকের শ্লেষ্মায় পাওয়া যাচ্ছে না।

তিনি বলেন, আগে করোনা হলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে লক্ষণ প্রকাশ পেতো না কিন্তু এখন প্রকাশ পাচ্ছে। দেখা যাচ্ছে একটু বয়স্ক হলে দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে রোগীর অবস্থা খারাপ হয়ে যাচ্ছে। মাঝে মধ্যে কিছু কিছু রোগীর লক্ষ্মণ প্রকাশের দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে আইসিইউ সেবা প্রয়োজন হয়ে পড়ে।

ডা: শামীম আহমেদ বলেন, সবচেয়ে ভালো হয়, প্রয়োজন না হলে ঘরেই অবস্থান করা। ঘরের বাইরে গেলে অন্যের স্পর্শে চলে আসতে হবে। আমরা তো জানিনা কে করোনা আক্রান্ত আর কে নয়। লক্ষ্মণ না থাকলেও আক্রান্ত ব্যক্তি নিজের অজান্তেই অন্যের মধ্যে করোনা ছড়িয়ে দেবে। সে জন্য যত দূর সম্ভব লকডাউনের মধ্যে বাড়ির বাইরে না যাওয়া।

 

সর্বশেষ নিউজ