৭, মার্চ, ২০২১, রোববার

ঘাটাইলে ফসলি জমির মাটি গিলে খাচ্ছে ইটভাটা

ইমরুল হাসান বাবু, টাঙ্গাইল: টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলায় দো-ফসলি জমির মাটি গিলে খাচ্ছে স্থানীয় ইটভাটাগুলো। এতে করে দিন দিন কমে যাচ্ছে আবাদি জমির পরিমান। ব্যাহত হচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে আবাদি জমিতে বেকু বসিয়ে মাটি কেটে নেয়া হচ্ছে ইটভাটাগুলোতে। মাটি ভর্তি ট্রাক অবাধ চলাচলের কারণে একদিকে নষ্ট হচ্ছে গ্রামীণ সড়ক। অপরদিকে ধুলোবালিতে পরিবেশ বিপর্যস্ত হয়ে সাধারণ মানুষ শ^াসকষ্ট সহ নানাবিধ জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। প্রশাসনের তদারকি না থাকায় বেপরোয়া হয়ে পড়ছে এসব মাটি ব্যবসায়িরা।

সরজমিনে দেখা যায়, উপজেলার সাধুর গলগন্ডা গ্রামের মিন্টু, বসুবাড়ী গ্রামের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শাহীন, বীরচারী চান্দে পাড়া গ্রামের সুমন, মনির, তেলে গলগন্ডা গ্রামের সুমন মিয়া, দেওপাড়া ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার খোরশেদ আলম খসরু, শোলাকী পাড়া গ্রামের কদ্দুছ, তালতলা গ্রামের আঃ রহিম, গারো বাজার গ্রামের আলামিন সহ প্রায় অর্ধশতাধিক মাটি ব্যবসায়ি উপজেলার বিভিন্ন দো-ফসলি জমিতে অবৈধ ভাবে বেকু বসিয়ে দেদারছে মাটি সরবরাহ করছে ইটভাটায়। ফলে প্রতিনিয়ত আবাদি জমির পরিমান কমে যাচ্ছে, ভারসাম্য হারাচ্ছে পরিবেশ। মাটি ব্যবসায়িরা এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায়না।

এ ব্যাপারে তেলে গলগন্ডা গ্রামের সুমন মিয়ার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই মাটির ব্যবসা করে থাকি। দিঘলকান্দি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শাহীন’র নিকট রাস্তাঘাটের বেহাল দশার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ রাস্তাটি আমি চেয়ারম্যান থাকাকালিন সময়ে করেছিলাম। রাস্তাঘাট নষ্টের ব্যাপারে তিনি কোন সদুত্তর দিতে পারেননি।

গলগন্ডা গ্রামের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি জানান, দো-ফসলি জমির মাটি কাটায় এবং গাড়ি চলাচলের কারণে রাস্তাঘাটে সঠিকভাবে চলাচল করতে পারিনা। নামাযের সময় মসজিদে মুসুল্লিদের যাতায়াতে বিঘœ ঘটায় এ মাটিবাহী গাড়ি।

ধলাপাড়া গ্রামের শফিক উদ্দিন বলেন, দীর্ঘদিন যাবৎ এ মাটি ব্যবসায়িরা পাহাড় কেটে ইটভাটাগুলোতে মাটি বিক্রি করে আসছে। এলাকায় কেউ প্রতিবাদ করলে তাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে ফাঁসানোর হুমকি দেয়।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. মুজাহিদুল ইসলাম বলেন, দো-ফসলি জমিতে মাটি কাটতে জেলা প্রশাসকের অনুমতি লাগবে। জেলা প্রশাসকের অনুমতি ব্যতিত যারা মাটি কাটে তারা অবৈধ। পরবর্তীতে ইটভাটাগুলোতে মোবাইল কোর্টের পাশাপাশি মাটি কাটার বিষয়টি নজর দেয়া হবে।

সর্বশেষ নিউজ