১৭, সেপ্টেম্বর, ২০২১, শুক্রবার

ঘুম, নেটফ্লিক্স আর অ্যামাজন প্রাইমে সময় কাটছে তামিমের

করোনাকালে প্রথম বিদেশ সফরে গেছে বাংলাদেশ দল। সীমিত ওভারের সিরিজের জন্য অনুশীলন শুরুর আগে পালন করতে হচ্ছে কঠোর আইসোলেশন। সুদূর নিউজিল্যান্ড থেকে সেই আইসোলেশনের অভিজ্ঞতা জানিয়েছেন ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল।

প্রথম ৩ দিন মোটেও বের হওয়ার সুযোগ ছিল ক্রিকেটারদের। প্রথম করোনা পরীক্ষায় প্রত্যাশিত ফল পাওয়ার পর এখন প্রতিদিন ৩০ মিনিটের জন্য বাইরে হাঁটার সুযোগ পান। বাকি সময় কাটে ঘুমিয়ে আর সিনেমা-ওয়েব সিরিজ দেখে। রুমে আবদ্ধ অবস্থায় যেসব অনুশীলন করা যায়, তা-ও চলছে।

সোমবার (১ মার্চ) তামিম ইকবাল বলছিলেন কীভাবে কাটছে তাদের সময়, ‘কেমন লাগছে এটা… (হাসি), ঠিক আছি। এটা তো এখন আসলে মেনে নিতে হবে। যেখানেই যাব সেখানেই এই নিয়ম-কানুন থাকবে। ঠিক আছে, অত খারাপ না। আসলে রুমের মধ্যে অলমোস্ট আমাদের সাড়ে ২৩ ঘন্টাই থাকতে হয় ২৪ ঘন্টার মধ্যে। আধা ঘন্টা আমরা ফ্রেশ এয়ারে যেতে পারি। ভাগ্যভালো রুমের মধ্যে আমাদের সাইকেল দিয়েছে, সাথে আমাদের কিছু ব্যান্ড দিয়ে দিয়েছিল বিসিবি থেকে। আমরা ফ্রি হ্যান্ড ব্যায়াম করতে পারি, সাইক্লিং এখানে আমরা করতে পারি। তাছাড়া আমার সময় কাটছে নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন প্রাইম এসব দেখেই। আর ঘুমাই, এছাড়া তো আর কিছু করার নেই। কারণ আপনি অন্য কারো সাথে দেখাও করতে পারবেন না, অন্য কোন রুমেও যেতে পারবেন না। তো এভাবে করে চলে যাচ্ছে আরকি।’

প্রথম দুই দিন পুরোপুরি ঘরবন্দি থাকার পর যখন আঘা ঘণ্টার জন্য বাইরে বেরুতে দিয়েছিল তখন অজব লেগেছিল তামিমের কাছে। শুনুন তার মুখেই, ‘প্রথমবারের মত যখন ফ্রেশ এয়ারে গেছিলাম একটু আজবই লাগছিল। কারণ, দুই-তিনদিন আমরা রুমের মধ্যে ছিলাম। তারপরে হঠাৎ করে আমাদের অনুমতি দেওযা হলো যে নিচে যেতে পারব। তখন সবার সাথে দেখা হয়ে ভালো লাগল। মনে হল অনেক বছর পর দেখছি একেকজনকে। যেহেতু নিচে ফ্রেশ এয়ারের জন্য একটা গ্রুপ সেট করা থাকে, পাচ-সাত জনের গ্রুপে আমরা যাই। তো এখনো অনেক টিমমেট আছে যাদের সাথে আমাদের দেখা হয়নি। তো যেটা বললাম, এটা ডিফারেন্ট, চ্যালেঞ্জিং, তবে পাস হয়ে যাচ্ছে।’

তিন ওয়ানডে ও তিন টি-টোয়েন্টি ম্যাচের এই সিরিজে বাংলাদেশ যে ভালো খেলতে চায় সেটা জানাতেও ভুলে গেলেন না বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক, ‘আমার এটা প্রথম বিদেশ সফর অধিনায়ক হিসাবে। আমি আশাবাদী। আমি নিশ্চিত প্রথম ওয়ানডে শুরু হবার আগে আমাদের যে প্র্যাকটিস সেশন আছে সেখানে আমরা দল হিসাবে তৈরি হতে পারব। সত্যি কথা দলের সবার সাথে কথা বলে আমি যা অনুভব করি, সবাই ভালো করতে চায় বাংলাদেশ দলের জন্য। আমরা আশাবাদী ইনশাআল্লাহ, দেখা যাক। যেটা আমি সবসময়ই বলি বাংলাদেশ দলের ঐ সক্ষমতা সবসময়ই আছে। যদি আমরা আমাদের প্ল্যান এক্সিকিউট করি, সবাই যদি আমাদের প্ল্যান অনুযায়ী খেলতে পারি, সবাই একসাথে ভালো পারফর্ম করি আমরা যেকোন দলকে হারাতে পারি। এটা আমি বিশ্বাস করি, আমি নিশ্চিত দলের সবাই-ই এটা বিশ্বাস করে। আমরা সবাই আশাবাদী।’

সর্বশেষ নিউজ