১, জুলাই, ২০২২, শুক্রবার

জিয়া পরিবার, খুনি পরিবার। খুনি জিয়া যে হত‍্যাকান্ড শুরু করেছিলো – নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

কাজী ওহিদ- জিয়া পরিবার, খুনি পরিবার। খুনি জিয়া যে হত্যাকান্ড শুরু করেছিলো, খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়া একই পথে হেঁটেছে। তারা খুনি পরিবার হিসেবে চিহ্নিত। খুনিরা যাতে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। খুনিদের বাংলার জনপদ ব্যবহার করতে দেওয়া হবেনা। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার করা হয়েছে। ২১ আগস্টে গ্রেনেড হামলার খুনিদের খুঁজে বের করে বিচার করা হবে এবং দেশে ফিরিয়ে এনে বিচার করা হবে। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে ২২ আগস্ট রবিবার শ্রদ্ধা জানিয়ে, পবিত্র ফাতেহা ও দুরুদ পাঠ শেষে সমাধিস্থল থেকে সাংবাদিকদেরকে এসব কথা বলেন, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি। নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যার পর বঙ্গব্ন্ধুকে নিষিদ্ধ করতে চেয়েছিলো, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করা যাবেনা মর্মে আইন পাশ করেছিলো। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের পথ প্রশস্থ করে। বঙ্গবন্ধু’র আদর্শ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা সম্ভব এবং সে লক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করছেন। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা, বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো. আলমগীর, বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান সৈয়দ মো. তাজুল ইসলাম, নৌপরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমডোর আবু জাফর মো. জালাল উদ্দিন, বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা চৌধুরী এমদাদুল হক, সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ ইলিয়াছুর রহমান, টুঙ্গিপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ সোলায়মান বিশ্বাস, পৌর মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ বাবুল শেখ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম হেদায়েতুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) দেদারুল ইসলাম, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম খান, জেলা যুবলীগের সভাপতি জি এম সাহাবুদ্দিন আজম, টুঙ্গিপাড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক বিএম ফোরকান বিশ্বাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। প্রতিমন্ত্রী পরে টুঙ্গিপাড়ার গিমাডাঙ্গা নাসেরিয়া ফাজিল মাদ্রাসা ও এতিমখানায় খাবার বিতরণ করেন। পরে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় আয়োজিত বঙ্গবন্ধু’র সমাধিসৌধ মসজিদ কমপ্লেক্সে দোয়া মাহফিল এবং বিকালে শেখ রাসেল দুস্থ শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ, ক্রীড়া ও ব্যবহার্য সামগ্রী বিতরণ করেন।

সর্বশেষ নিউজ