২০, অক্টোবর, ২০২১, বুধবার

টঙ্গীবাড়ীতে সাংস্কৃতিক সংগঠনের সভাপতি রাজাকারপুত্র!

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মুন্সীগঞ্জ টঙ্গীবাড়ীতে প্রাক্তণ শিক্ষার্থীদের সাংস্কৃতিক সংগঠনে সভাপতি পদে চিহ্নত রাজাকার পুত্র ও ভূমিদস্যুকে নির্বাচিত করার পায়তারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এনিয়ে ওই সংগঠনের সাধারণ সদস্যদের মধ্যে ক্ষোভের সংঞ্চার হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে উপজেলার শতবর্ষ প্রাচীন স্বর্ণগ্রাম আর এন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের সংগঠন অনুশীলন সাংস্কৃতিক সংসদের নতুন কমিটিতে স্থানীয় চিহৃিত রাজাকার ফজলুল হক শেখ (ফজলা রাজাকার)এর পুত্র আজিম কাউসারীকে সভাপতি করে ২১ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করেন সংগঠনটির প্রেসিডিয়াম সদস্যগণ। রাজাকার পুত্র ছাড়াও আজিম কাউসারের বিরোদ্ধে ওই স্কুলের জমি দখলের চেষ্টারও অভিযোগ রয়েছে।
ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয়ের সংগঠনে রাজাকার পুত্র ও ভূমিদস্যুকে সভাপতি ঘোষনা করায় ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেছে ওই সংগঠনের একআংশ।

সরেজমিনে জানাগেছে, আজিম কাউসারীর পিতা ফজলুল হক শেখ এলাকার চিহ্নিত ও তালিকাভূক্ত রাজাকার। এদিকে এর আগে বিগত ২০১৪/১৫ সালে স্বর্ণগ্রাম আর এন উচ্চ বিদ্যালয়ের জমি দখলের চেষ্টা করেন এই অভিযুক্ত আজিম কাউসারী। সে সময় তার ভূমিদস্যুতার অভিযোগে এনে ঝাড়ু মিছিল করেন বিদ্যালয়টির শিক্ষক,অভিবাবক ও শিক্ষার্থীরা।

এমন একজন বিতর্কিত লোককে ঐতিহ্যবাহী সংগঠনের সভাপতি নির্বাচিত করা ঠিক হয়নি দাবী করে সদ্যবিলুপ্ত হওয়া কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান শান্ত বলেন,নতুন কমিটি ঘোষণা কালে আমি ছিলামনা। আর যার বিরুদ্ধে রাজাকর পুত্র ও বিদ্যালয়ের ভুমি দখলের অভিযোগ রয়েছে এমন লোককে সভাপতি মেনে নেয়ার মতনা।

ভালো হওয়ার সুযোগ দেন জানিয়ে সংগঠনটির প্রেসিডিয়াম সদস্য লুৎফর হাওলাদার (খুকু) বলেন,সংগঠনের ৯ জন প্রেসিডিয়ম সদ্যসের মধ্যে ৫ জন সদস্যের উপস্থিতে আজিম কাউসারীকে সভাপতি করে কমিটি ঘোষনা করা হয় তখন কেউ বাঁধা দেয়নি। এর আগেও আজিম কাউসারী অনুশীলন সাংস্কৃতিক সংসদের পদে ছিলেন তখন কেউ অভিযোগ করেনি।

এব্যাপারে সংগঠনটির অপর প্রেসিডিয়াম সদস্য স্বপন হাওলাদার বলেন,সব মানুষের বিরুদ্ধেই কিছুনা কিছু বির্তক থাকে। তবে আজিম কাউসারী একজন সাংগঠনিক লোক তাই তাকে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়েছে।

নবগঠিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান বলেন, এই কমিটির ঘোষনা কালে আমি ছিলামনা। সংগঠনের প্রেসিডিয়ম সদস্যরা কমিটি ঘোষনা করেছেন। আমরা শুনেছি কায়সারীর বাবা এবং চাচা স্বাধীনতা বিরোধী ছিলেন। আমি আগামী ২৬ মার্চে সংগঠনের আয়োজিত অনুষ্ঠানেও থাকবোনা। কারন কোন বির্তকিত কিছুর নিজেকে জড়াতে চাইনা ।

এব্যাপারে স্থানীয় ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মজিবুর মোল্লা বলেন,অভিযুক্ত আজিম কাউসারীর বাবা ফজলুল হক শেখ (ফজলা রাজাকার) একজন চিহৃিত রাজাকার ছিলেন শুধু তিনি নয় তার আর এক ভাই বারেক হক শেখও রাজাকার ছিলেন। তাদের উভয়ের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা সংগ্রামে মুক্তিকামি একাধিক মানুষকে হত্যা অভিযোগ রয়েছে তার ছেলে কি করে এমন একটি সংগঠনের সভাপতি হতে পারেন।

স্বর্ণগ্রাম আর এন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর বাসেদ বলেন,আজিম কাউসারীকে এর আগে আমাদের স্কুলের জমি ভাড়া দিলে তিনি সেই জমির ভূয়া দলিল করে দখলের চেষ্টা করে। তখন শিক্ষক,শিক্ষার্থী ও অভিবাবকদের প্রতিবাদের মুখে সেই জমি ছাড়তে বাধ্য হয়। তখন তাকে বিদ্যালয়ে অবাঞ্চিত ঘোষনা করা হয়েছিলো। এমন বির্তকিত লোককে এমন ঐতিহ্যবাহী সংগঠনের সভাপতি করা ঠিক হবেনা।

তবে পদ-পদবির লোভ নেই দাবী করে অভিযুক্ত আজিম কাউসারী বলেন,আমি পদ-পদবি চাইনি সংগঠনের প্রেসিডিয়ম সদস্যরা আমাকে সভাপতি নির্বাচিত করেছে তখন কেউ বাঁধা দেয়নি। আর আমার বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগটি সত্য নয়। এছাড়াও তিনি আরো বলেন, আমার বাবা মুসলিম লীগ করতেন। তখন যারাই মুসলিম লীগের সাথে জড়িত ছিলো সবাইকে রাজাকার বলা হয়।

আমজাদ আলী শেখ এর পুত্র ফজলুল হক শেখ চিহৃিত রাজাকার এবং তালিকাভুক্ত নিশ্চিত করে সকল স্বাধীনতা বিরোধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার নেয়ার জন্য কেন্দ্রে রাজাকারদের তালিকা পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের দপ্তর সম্পাদক মোঃ সিরাজউদ্দিন তালুকদার বুলু।

সর্বশেষ নিউজ