৪, আগস্ট, ২০২১, বুধবার

ডিজিটাল দেশেও দুই হাত না থাকায় কিনতে পারেনা না সিম কার্ড

আমি প্রতিবন্ধী বলে নিজের নামে সিম কার্ড ক্রয় করতে পারছি না। আর দেশ ডিজিটাল হয়েছে। দুটি হাত যাদের নেই, তারা কীভাবে সিম কার্ড কিনবে, সে পদ্ধতি এখনো তৈরি করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। এটি দুঃখজনক।’ কথা গুলো বলছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী বাহার উদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘আমার দুটি হাত নেই। আঙুলের ছাপ দিতে না পারায় আমার কাছে সিম কার্ড বিক্রি করছে না কেউ। এ নিয়ে আমি মোবাইল সেবাদাতা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাস্টমার কেয়ারে ধরনা দিয়েছি।

এসব প্রতিষ্ঠান বলেছে, আমার মা কিংবা পরিবারের অন্য সদস্যের মাধ্যমে সিম কার্ড ক্রয় করা যাবে। কিন্তু আমি নিজের নামে কোনো সিম কার্ড কিনতে পারব না। কারণ, আঙুলের ছাপ ছাড়া সিম কার্ড তারা বিক্রি করবে না।’

২০০৪ সালে বাহার উদ্দিনের বয়স তখন সাত বছর। একদিন বিকেলে বাড়ির পাশে বৈদ্যুতিক খুঁটিতে বসানো ট্রান্সফরমারে একটি পাখি ঢুকে পড়ে। বাহার পাশেই খেলছিলেন। পাখিটি ট্রান্সফরমারে ঢুকতে দেখে চোখ আটকে যায় তাঁর। কিছুক্ষণ অপেক্ষাও করেন। কিন্তু পাখি বের হয় না। পরে নিজেই খুঁটি বেয়ে ওপরে ওঠেন। ট্রান্সফরমারের কাছে এসে হাত দিতেই বিকট শব্দে ছিটকে পড়েন নিচে। এরপর হারান তাঁর দুটি হাত।

সেই থেকে বাহারের যুদ্ধ শুরু। তবে হাল ছাড়েন না তিনি। নানা বাধা ডিঙিয়ে তিনি ভর্তি হন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে। এখন তিনি চতুর্থ বর্ষে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট তৈরি করে নেন। এতে প্রতিবন্ধিতা কোনো সমস্যা সৃষ্টি করেনি। এর মধ্যে স্মার্টফোনও কেনেন। শুরুতে মায়ের নামে কেনা সিম কার্ড ব্যবহার করতেন। কিন্তু নিজের নামে সিম কার্ড কিনতে গিয়ে বাধে বিপত্তি। এখন আঙুলের ছাপ দিতে না পারায় তিনি কিনতে পারছেন না সিম কার্ড।

দেশে সিম কার্ড ক্রয়-বিক্রয়ের নিয়মনীতি তৈরি করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। বিটিআরসি সূত্র জানায়, সিম কেনার ক্ষেত্রে আগে আঙুলের ছাপের দরকার হতো না। ২০১৫ সালের ১৬ ডিসেম্বর সিম নিবন্ধনে আঙুলের ছাপ বা বায়োমেট্রিক পদ্ধতি চালু হয়। তবে যাঁদের দুই হাত নেই, তাঁরা কীভাবে নিজের নামে সিম কিনবেন, সে বিষয়ে কোনো নির্দেশনা বিটিআরসির নেই।

বিটিআরসির সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিস বিভাগের সহকারী পরিচালক কল্লোল বড়ুয়া প্রথম আলোকে বলেন, দুই হাত না থাকা ব্যক্তিদের সিম কার্ড ক্রয় নিয়ে কোনো নির্দেশনা এখনো নেই। তবে পাসপোর্ট, জন্মনিবন্ধন কিংবা অন্য কোনো বৈধ পরিচয়পত্র দিয়ে সিম কেনা যাবে। তবে সেটি ছয় মাসের জন্য। ছয় মাস পর সিম কার্ড বন্ধ হয়ে যাবে। কিন্তু কোনো প্রতিবন্ধী ব্যক্তি তাঁর মা–বাবা কিংবা অন্য কোনো অভিভাবকের মাধ্যমে সিম কার্ড কিনে ব্যবহার করতে পারবেন।

বাহার উদ্দিন বলেন, ‘পাসপোর্ট ও জন্মনিবন্ধন নিয়ে যাওয়ার পরও সিম কার্ড কিনতে পারিনি। এ ছাড়া সরকার প্রতিবন্ধীদের জন্য সুরক্ষা আইন তৈরি করেছে। অথচ আমি প্রতিবন্ধী বলে নিজের নামে সিম কার্ড ক্রয় করতে পারছি না। আর দেশ ডিজিটাল হয়েছে। দুটি হাত যাদের নেই, তারা কীভাবে সিম কার্ড কিনবে, সে পদ্ধতি এখনো তৈরি করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। এটি দুঃখজনক।’sangbad247

সর্বশেষ নিউজ