৭, জুলাই, ২০২২, বৃহস্পতিবার

দিনাজপুরে খানসামায় ভূয়া নিয়োগপত্র দিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়া অভিযোগ

মো: আজিজার রহমান,(খানসামা) দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরের খানসামা উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও খানসামা দ্বি-মুখী ফাযিল মাদরাসার সহকারী শিক্ষক মোঃ মোকছেদার রহমানের বিরুদ্ধে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও বাস্তবায়ন সংস্থার ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে প্রতারণা করে ৪ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
[এবিষয়ে ভুক্তভোগী যুবক পার্শ্ববর্তী ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার রিপন চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে খানসামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর মোকছেদার রহমানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত বছরের আগস্ট মাসে ভুক্তভোগী যুবকের আতœীয় নিতাই চন্দ্র দেবনাথের মাধ্যমে খানসামা উপজেলা আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও খানসামা দ্বি-মুখী ফাযিল মাদরাসার সহকারী শিক্ষক মোঃ মোকছেদার রহমান স্বাস্থ্য বিভাগের একটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের সাথে ভালো সম্পর্ক আছে মর্মে মাসিক ১৯৫০০ টাকা বেতনে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে কম্পিউটার অপারেটর পদে চাকুরী দেওয়ার নাম করে। গত বছরের ডিসেম্বর মাসে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে যোগদান করিয়ে দেবে বলে দফায় দফায় রিপন চন্দ্র সরকারের কাছে থেকে ব্যাংকের মাধ্যমে ও সরাসরি ৪ লক্ষ ৮ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
মোকছেদার রহমান তার সহযোগীসহ মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা ও বাস্তবায়ন সংস্থার ভুয়া নিয়োগপত্র প্রদান করেন। রিপন চন্দ্র সরকার নিয়োগ পেয়ে মেডিকেলে যোগদান করতে গিয়ে বুঝতে পারেন যে, নিয়োগপত্রটি ভুয়া।

পরবর্তীতে পরিবারের লোকজনসহ মোকছেদার রহমানের সাথে কথা বললে তিনি খুলনা সদর হাসপাতালে একই পদে যোগদানের জন্য আরেকটি ভুয়া নিয়োগপত্র ধরিয়ে দেন। সেখানেও যোগদান করতে গিয়ে খুলনা সিভিল সার্জনের সাথে বলে তিনি জানতে পারেন যে, তারা স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন। তবে এটা কোন সরকারী চাকুরী নয়।

পরবর্তীতে মোকছেদার রহমানের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি অস্বীকার ও বিভিন্ন ধরনের টালবাহানা শুরু করেন।

ভুক্তভোগী যুবক রিপন চন্দ্র সরকার জানান, সংস্থার চাকুরি ছেড়ে দিয়ে সরকারী চাকুরিতে যোগদান করতে এসে ভুয়া নিয়োগপত্র নিয়ে ভুয়া চাকুরিতে নামে মাত্র যোগদান করতে গিয়ে ফিরে এসেছি। এখন সংসার নিয়ে বর্তমানে মানবেতর জীবন যাপন করছি।

টাকা নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে অভিযুক্ত মোকছেদার রহমান বলেন, আমি ঐ যুবক রিপনের নিয়োগে মাধ্যম হিসেবে কাজ করেছি। যিনি টাকা নিয়েছেন তিনি দ্রুত সময়ের মধ্যে টাকা ফেরতের আশ্বাস দিয়েছেন।

এবিষয়ে ইউএনও খানসামা আহমেদ মাহবুব-উল-ইসলাম বলেন, লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর দু’পক্ষের মধ্যে গণশুনানিতে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অর্থ নেওয়ার সম্পৃক্ততা মিলেছে। সেই অর্থ দ্রুত সময়ের মধ্যে ভুক্তভোগী যুবককে ফেরত দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে আওয়ামীলীগ খানসামা উপজেলা শাখার নেতা সাথে যোগাযোগ করলে এ বিষয়ে কেউ কথা বলতে রাজি হয়নি।

সর্বশেষ নিউজ