১৭, সেপ্টেম্বর, ২০২১, শুক্রবার

ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা’কে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি এমপি হারুনের

তিন সঙ্গীসহ নিখোঁজ আলোচিত ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানকে উদ্ধার করে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিতে জাতীয় সংসদে জোর দাবি জানান বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশিদ।

দেশে সবার জন্য আইনের শাসন নেই দাবি করে তিনি বলেন, ‘৫০ বছর পর পাসপোর্ট থেকে আপনি ইসরায়েল শব্দটি বাদ দিলেন। নিঃসন্দেহে এটি অগ্রহণযোগ্য এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এটাকে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে নেয়ার জন্য অনুরোধ করবো।’

আইন ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সমালোচনা করে বিএনপির এ সংসদ সদস্য বলেছেন, ‘আজকে আমরা অপহরণ-গুম-খুনের কথা বলছি। এই কিছুদিন আগে একজন আলেম নিখোঁজ হয়েছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, খোঁজ নিচ্ছি। তাকে ফিরিয়ে দিতে না পারা হবে রাষ্ট্রের জন্য বড় ব্যর্থতা হবে। আমি বলবো, আদনানকে অবশ্যই ফিরিয়ে দিতে হবে। তার পরিবারের আহাজারি আপনাকে শুনতে হবে।

জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন। এসময় তিনি খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবি জানান।

বাজেটের সমালোচনা করে হারুন বলেন, এবারের বাজেট ‘অত্যন্ত বৈদেশিকনির্ভর এবং ৫০ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ঘাটতির বাজেট। করোনাকালে এ বাজেট বাস্তবায়ন মোটেই সম্ভব নয়। মহাজোট সরকারের এটি ১৩তম বাজেট। এর আগে ১২টি বাজেট সংসদে উত্থাপিত হয়েছে। কোনোটিই বাস্তবায়িত হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘একটি রাষ্ট্রের আর্থিক কাঠামোর দিকে দৃষ্টি দিতে গেলে সেখানে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি তাকাতে হবে। আমি নিঃসন্দেহে বলবো, বাংলাদেশের শেয়ারবাজার ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি আছে। সেখানে মাঝে মাঝে একটু খুলছে। আবার চোখ বন্ধ করছে। চোখ খুলেই দেখে দরবেশ বাবা চারদিকে ঘিরে আছে। তখন চোখ বন্ধ করে রাখে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সংবিধানের দ্বিতীয় অনুচ্ছেদে মৌলিক অধিকারের যে অনুচ্ছেদগুলো রয়েছে- সেখানে সভা-সমাবেশের কথা বলা হয়েছে। সেগুলোর কি কোনো অস্তিত্ব আছে? আজকে ভিন্নমত প্রকাশের কোনো স্বাধীনতা আছে? আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ অনুচ্ছেদ যেটি নিয়ে আন্তর্জাতিকভাবে রাষ্ট্রকে সাংঘাতিকভাবে নাড়া দিয়েছে। আজকে রাষ্ট্রপতি নির্বাহী বিভাগের ৪৯/এ অনুচ্ছেদটি রয়েছে সেখানে যেকোনো দণ্ডিত আসামিকে রাষ্ট্রপতিকে মাফ করার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। এই মহাজোট সরকার আমলে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ জন খুনি, দণ্ডিত আসামিকে মাফ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘আজকে তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া রাজনৈতিক কারণে মাত্র দুই বছর সাজা দিয়ে তাকে আপনি চিকিৎসার সুযোগ দিচ্ছেন না। বাংলাদেশে আজকে দণ্ডিত আসামিদেরকে আপনারা মাফ করে দিচ্ছেন। এটি হতে পারে না। আজকে এখানে (সংসদ) প্রধানমন্ত্রী আছেন। আমি আশা করবো- অবশ্যই তিনি তাকে (খালেদা জিয়া) সুচিকিৎসার সুযোগ দেবেন।’

সর্বশেষ নিউজ