১৭, সেপ্টেম্বর, ২০২১, শুক্রবার

নবাবগঞ্জের হেয়ার প্রসেসিং কারখানায় তৈরী চুল যাচ্ছে বিদেশে

নবাবগঞ্জ(দিনাজপুর) সৈয়দ হারুনুর রশীদ: দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে গড়ে তোলা হেয়ার প্রসেসিং কারখানা থেকে তৈরী চুল চলে যাচ্ছে বিদেশে। উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নের মতিহারা নামক স্থানে একটি ভাড়া বাড়িতে চুয়াডাঙ্গা এলাকার জনৈক তারেক আলী সহ তার ২ সহযোগীর অংশিদারিত্বে গড়ে তোলা হয়েছে ওই কারখানাটি।

কারখানার নাম দেয়া হয়েছে মেসার্স সায়মা হেয়ার এন্টারপ্রাইজ। কারখানার ব্যবস্থাপক আজমত আলী জানান চলতি বছরের জানুয়ারী মাসের ১ তারিখ থেকে কারখানাটি চালু করা হয়েছে। কারখানায় নানা শ্রেণী ও পেশার ২৫০ জন নারী শ্রমিক হিসাবে কাজ করছেন। তারা সপ্তাহে ৬দিন করে কাজ করে। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত তারা কাজ করে। মাঝখানে ১ ঘন্টা খাবার বিরতী থাকে। এসব নারী শ্রমিকেরা নিজের খাবার খেয়ে মাসিক ৩ হাজার টাকা বেতনে কাজ করে।

কারখানায় ৪ঢ৪ ক্লোজার ও টি আকৃতির চুল তৈরী করা হয়। বায়ারেরা মালামাল সরবরাহ করে তারা এখান থেকে তা তৈরী করে নিয়ে যায়। বর্তমানে তাদের তৈরী চুল যাচ্ছে চীনে। এছাড়াও মায়ানমার ও ভিতেনামেও এসব চুল যায়। মঙ্গলবার ওই কারখানায় গিয়ে দেখা যায় চীনা নাগরিক কারখানার কোয়ালিটি কন্ট্রোলার চিং লি শ্রমিকদের চুল তৈরীর মান দেখাশুনা করছেন। ব্যবস্থাপক আজমত আরও জানান পরিত্যাক্ত চুল প্রক্রিয়াজাত করণের পর কারখানায় আসে। দেশে পরিত্যাক্ত চুল ঘাটতি দেখা দিলে তা ভারত থেকে আমদানি করা হয়ে থাকে।

এদিকে কারখানাটিটি চালু হওয়ায় বেকার নারীদের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। নবম ও দশম শ্রেণীতে পড়া মাদ্রসা শিক্ষার্থী যথাক্রমে মহিনী আকতার কেয়া ও রানী জানান করোনাকালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় তারা সেখানে শ্রমিকের কাজ করে বাড়তি উপার্জন করছেন। গৃহবধূ আইরিন বেগম জানালেন সেখানে কাজ করে তিনি সংসারে বাড়তি উপার্জন করছেন। এরকম কারখানা শুধু মতিহারাতেই নয় চড়ারহাট ও ভাদুরিয়াতেও রয়েছে বলেও ব্যবস্থাপক জানান।

সর্বশেষ নিউজ