৭, ডিসেম্বর, ২০২১, মঙ্গলবার

নরসিংদীতে মেয়রের গাড়ি ব্যবহার করে নৈশপ্রহরীকে গুলি, ড্রাইভারসহ গ্রেপ্তার ৬

সাইফুল ইসলাম রুদ্র, নরসিংদী প্রতিনিধি: নরসিংদীতে পাঞ্জাবির বোতাম লাগানোকে কেন্দ্র করে কথা কাটাকাটির জেরে হামলা ও নৈশপ্রহরীকে গুলির ঘটনায় মাধবদী পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিকের গাড়ি চালকসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হওয়া মাইক্রো গ্রীণ সিটির নিরাপত্তা প্রহরী সালাম ভূইয়ার বড় ভাই মো. নুরল ইসলাম বাদী হয়ে হত্যাচেষ্টা মামলা ও পাঁচদোনা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক মো. ইউসুফ বাদী হয়ে একটি অস্ত্র মামলা দায়ের করেছেন।

এ ঘটনায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার আবেদনের প্রেক্ষিতে আজ রোববার প্রধান আসামি নূরে আলমের দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মামলার আসামিরা হলেন, মাধবদী পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিকের গাড়ি চালক ও পাঁচভাগ শ্রীনগর এলাকার মানিক মিয়ার ছেলে আলামিন (২৬), মাধবদী থানার পাঁচভাগ শ্রীনগর এলাকার সাইদুর রহমানের ছেলে নূরে আলম (২২), একই এলাকার মানিক মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর (২৬), মো. আতাউল্লাহর ছেলে কাজল (২৩), মো. রতন মিয়ার ছেলে শাহাদাত (২১), পাথরপাড়া এলাকার মৃত লাল মিয়ার ছেলে ইয়াকুব (২২), এনামুল হক এলোর ছেলে মিঠু মিয়া (২০) ও সাত্তার মিয়ার ছেলে আমজাদ হোসেন (২৬)। আসামিদের মধ্যে মিঠু ও আমজাদ ছাড়া বাকি সবাইকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গুলিবিদ্ধ নৈশপ্রহরী সালাম ভূইয়ার স্ত্রী ও স্বজনেরা জানান, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর পাঞ্জাবির বোতাম লাগানো নিয়ে পাঁচদোনা বাজারের মাইক্রো গ্রীণ সিটি মার্কেটের সোহাগ টেইলার্সের মালিকের সাথে জাহাঙ্গীরের কথাকাটি হয়। এই ঘটনার জেরে রাত ৯ টার দিকে মাধবদী পৌর মেয়র মোশাররফ হোসেন প্রধান মানিকের ব্যবহৃত গাড়ি নিয়ে ওই মার্কেটে যান ড্রাইভার আলামিন ও তার সহযোগী আসামিরা।

গাড়ি থেকে বের হয়েই তারা অস্ত্রের মুখে সিরাজকে এলোপাথারি কুপিয়েছে। এ সময় নৈশপ্রহরী বাধা দিতে আসলে তাকে গুলি করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা সালাম মিয়াকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তাররা তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে প্রেরণ করে। বর্তমানে সে সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সর্বশেষ নিউজ