১৪, জুন, ২০২১, সোমবার

বাংলাদেশিকে নির্যাতন করে ‘মৃত’ ভেবে ফেলে গেল বিএসএফ

ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) বিরুদ্ধে ঠাকুরগাঁওয়ে হরিপুর উপজেলার বেতনা সীমান্তে জমিতে বোরো ধানের চারা রোপণের সময় শাহা আলম (১৭) নামে এক কিশোরকে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। নির্যাতনের একপর্যায়ে ওই কিশোরকে অচেতন হয়ে পড়লে তাকে “মৃত” ভেবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ফেলে রেখে যায় বিএসএফ সদস্যরা।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে হরিপুর উপজেলার বেতনা সীমান্তের ৩৬৭ পিলারের কাছে এ ঘটনা ঘটে।

আহত শাহা আলম হরিপুর উপজেলার মানিকখাড়ী গ্রামের মো. নজরুল ইসলামের ছেলে। তিনি বর্তমানে হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বরত চিকিৎসক জানান, তাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শরীরে বিভিন্ন ধরনের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

আহত কিশোরের বাবা নজরুল ইসলাম জানান, সকালে সীমান্তের ৩৬৭ নং পিলারের কাছে নিজের জমিতে বোরো ধানের চারা রোপণ করছিল শাহা আলম।

দুপুরে হঠাৎ কোয়ালিঘর ক্যাম্পের বিএসএফের সদস্যরা এসে তাকে তুলে নিয়ে কাঁটাতারের কাছে পাশবিক নির্যাতন চালায়। নির্যাতনের কারণে শাহা আলম অজ্ঞান হয়ে গেলে মৃত ভেবে ফেলে চলে যায় বিএসএফ সদস্যরা।

তিনি জানান, স্থানীয়রা খবর দিলে আমরা সকলে গিয়ে শাহা আলমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করি। এমন নির্মম নির্যাতনের বিচারের পাশাপাশি সীমান্তে নিরাপত্তার সাথে কৃষি কাজ করার নিশ্চয়তা দাবি করেছেন নজরুল ইসলামসহ স্থানীয় কৃষকরা।

ভারতের কোয়ালিঘর ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা এমন পাশবিক নির্যাতন চালিয়েছে জানিয়েছে বেতনা বিজিবি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার হাবিব বলেন, “বিষয়টি নিয়ে পতাকা বৈঠক করার জন্য বিএসএফকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।”

বিষয়টি জানতে ঠাকুরগাঁও ৫০ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শহিদুল ইসলামের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তার ফোনটি রিসিভ হয়নি।

সর্বশেষ নিউজ