২৮, অক্টোবর, ২০২১, বৃহস্পতিবার

বিএনপি উগ্র- মৌলবাদীদের রাস্তায় নামিয়ে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করছে: নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী

মোঃ আব্দুস সাত্তার, দিনাজপুর প্রতিনিধি : দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা থামিয়ে দিতে বিএনপি উগ্র- মৌলবাদীদের রাস্তায় নামিয়ে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরী করছে বলে মন্তব্য করে নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন দ্ব্যার্থহীন ভাষায় বলতে চাই কিছু সংখ্যক উগ্রবাদী মৌলবাদীকে রাস্তায় নামিয়ে দিয়ে বাংলাদেশের উন্নয়নের পথযাত্র থামিয়ে দেয়া যাবে না।

আপনার ভুল পথে রাজনীতি করছেন। ভুল পথে পরিচালিত হচ্ছেন। জনগণ রক্ত দিয়ে এক অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়েছে এখানে সাম্প্রদায়িকতার কোন সুযোগ নেই।
২৭ মার্চ শনিবার বিকাল ৫ টায় দিনাজপুর শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে মুজিববর্ষ ও মহান স্বাধীনতার ৫০বছর সুবর্নজয়ন্তী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এসব কথা বলেন ।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুলের উদ্দেশ্যে নৌ প্রতিমন্ত্রী বলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে আসবেন সেটাইতো স্বাভাবিক। এটাই তার সহনশীলতা, প্রতিবেশীর প্রতি তার দায়িত্ববোধ। বাংলাদেশ এবং দেশের জনগণকে সম্মানিত করার জন্যই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাংলাদেশে এসেছেন। জিয়াউর রহমান দেশকে অন্ধকারে নিয়ে গিয়েছিলা। অন্ধকারে নিমজ্জিত বাংলাদেশকে আজকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গর্ব ও মর্যাদার জায়গায় নিয়ে গেছেন

বাংলাদেশের ৫০ বছরের ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর চেয়ে ভালো শাসক আর নেই। জাতির পিতা সাড়ে তিন বছরে বাংলাদেশের ভিত্তি তৌরি করে দিয়েছেন। এর উপর দাঁড়িয়ে আমরা এগিয়ে চলছি। বাংলাদেশের সমুদ্র কীভাব চলবে সেজন্য ১৯৭৪ সাল মেরিটাইম এ্যাক্ট করেছেন। এর ৮ বছর পর জাতিসংঘ এরকম আইন করেছে। সীমান্ত চুক্তি ও গঙ্গা চুক্তি বঙ্গবন্ধু করে গেছেন। সেই চুক্তি এখনা প্রবাহমান।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বব্যাংককে চ্যালেঞ্জ করে পদ্মাসতু করেছেন কেউ এ সাহস দেখাতে পারে নাই।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর রাষ্ট্রপ্রধান ও সরকার প্রধানরা সশরীরে এসে বাংলাদেশকে সম্মানিত করেছে। দেশের উন্নয়ন এবং অগ্রগতির জন্য সারা পৃথিবীর সরকার প্রধান ও রাষ্ট্রপ্রধানরা আমাদেরকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা বার্তা পাঠিয়েছেন। আঞ্চলিক রাষ্ট্রের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানরা নিজে সশরীরে এসে বাংলাদেশকে সন্মানিত করেছে। এই অগ্রযাত্রার উদযাপনে অংশগ্রহণ করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমাদের এই অর্জনগুলো সম্ভব হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে এসময় উপস্হিত ছিলেন দিনাজপুর ১ আসনের সাংসদ মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি, দিনাজপুর সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ এডভোকেট জাকিয়া তাবাসসুম জুই এমপি , সাবেক সাংসদ এ্যাড আব্দুল লতিফ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী প্রমুখ

সর্বশেষ নিউজ