১৩, জুন, ২০২১, রোববার

ভুল চিকিৎসায় স্কুলছাত্রের মৃত্যুর অভিযোগ, প্রতিবাদে স্বজদের মারধর

গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় ষষ্ঠ শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রের মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় প্রতিবাদ করায় ওই ছাত্রের স্বজনদের মারধর করার ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে গাইবান্ধা জেলা হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত হাসিবুর গাইবান্ধা সদর উপজেলার গিদারী ইউনিয়নের দক্ষিণ গিদারী গ্রামের ব্যাপারি পাড়ার বকুল মিয়ার ছেলে ও স্থানীয় আমানউল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্র।

তবে ওই হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার হারুন অর রশিদ ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগসহ এর জেরে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করেন।

নিহত স্কুলছাত্রের পরিবারের অভিযোগ, মঙ্গলবার বিকেলে খেলাধুলা শেষে হাসিবুর শারীরিক অসুস্থতাবোধ করলে তাকে চিকিৎসার জন্য সন্ধ্যায় জেলা হাসপাতালে নিয়ে আসে তার পরিবার। এ সময় হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. সুজন পাল প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে হাসিবুরকে সাধারণ বেডে ভর্তি করান। এরপর হাসিবুরের অবস্থার উন্নতি না হলে মঙ্গলবার রাত আটটার দিকে হাসিবুরের শরীরে একটি ইনজেকশন পুশ করা হয়। আর এই ইনজেকশন দেয়ার পরপরই হাসিবের নাক-মুখ দিয়ে ফেনা ও রক্ত বের হয়ে কিছুক্ষণের মধ্যে তার মৃত্যু হয়।

হাসিবুরের বাবা বকুল মিয়া অভিযোগ করে বলেন, ‘ইনজেকশন পুশ করার প্রতিবাদ জানালে আমাদের ওপর চড়াও হয় দায়িত্বরত চিকিৎসক-নার্স। পরে বাহির থেকে ফোন করে আনা কিছু ভারাটিয়া সন্ত্রাসীদের মাধ্যমে আমাদের মারধর করতে করতে হাসপাতাল থেকে বের করে দেয়া হয়।’

তবে ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগ অস্বীকার করে গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার মো. হারুন অর রশিদ বলেন, ‘সাসপেক্টেট পয়জনিং হিসেবে চিকিৎসা দেয়া হয়। এর দুই ঘণ্টা পরে রোগীটি মারা যায়। এর পরিপেক্ষিতে যারা রোগীর লোকজন ছিল আমাদের নার্সদের ওপর চড়াও হয়। ইনজেকশন দিয়ে তাকে মারা হয়েছে এমন অভিযোগ করে।’

সর্বশেষ নিউজ