২৭, অক্টোবর, ২০২১, বুধবার

মুন্সীগঞ্জে আওয়ামীলীগ নেতাকে নারী কেলেঙ্কারিতে ফাসানোর চেষ্টা

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ পরিকল্পিত ভাবে নারী কেলেঙ্কারিতে ফাসানো চেষ্টা করা হয়েছে আওয়ামীলীগ নেতা কাতার প্রবাসী ইউসুফকে। তিনি মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের মহেষপুর গ্রাম থেকে (১২ এপ্রিল) সোমবার বিকালে ঢাকার বাড়ীতে যাওয়ার সময় ফোন করে তাকে ডেকে নেয় ভাড়া বাসা শহরের মাঠপাড়ায় তার পাশ্ববর্তি গ্রাম আলদির এক নারী । পরে সেখানে মিথ্যা অভিযোগ এনে ইউসুফকে আটকে রাখে এলাকার কিছু বখাটে যুবক।পরে তার ভিডিও ধারনে করে আপত্তিকর অবস্থায় আওয়ামীলীগ নেতা ইউসুফকে আটক করে জনতা এমন শিরোনামে ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়া হয়। এসব করে তার সুনামখুন্ন করার পাশাপাশি সমাজে হেও প্রতিপন্ন করার অপকৌশল করা হয়েছে বলে অভিযোগ সচেতন মহলের । এছাড়াও ইউসুফ এর সাথে থাকা নগদ ৫০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় বখাটেরা ।

এব্যাপারে আওয়ামীলীগ নেতা ইউসুফ বলেন,আমি গ্রামের বাড়ী থেকে আমার ঢাকার বাড়ীতে যাচ্ছিলাম এমন সময় আমার পাশ্ববর্তি গ্রাম আলদির পলি আক্তার নামের এক মেয়ে আমাকে ফোন দেয় তার বোনের বাড়ী তে ঘর উঠানো নিয়ে জামেলা এই বিষয় আলাপ করেতে তার মাঠপাড়ার বাসায় যেতে বলে একটা বিচার সালিসী করতে হবে সেই বিষয়ে পরামর্শ করবে । এমন কথা শুনে আমি আমার ব্যবহৃত গাড়ী ফ্লাটির সামনে রেখে ভিতরে যেতেই কয়েকজন বখাটে যুবক দ্রুত ফ্লাটে ডুকে আমাকে আটক করে আমাকে মারধর করে আমার হাত বেধে তা ভিডিও ধারণ করে। কেন আমাকে আটক করা হয়েছে যানতে চাইলে তারা আমাকে মারধর করে । পরে বিষয়টি সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান খবর পেয়ে আমাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। এর মধ্যে আমার সাথে থাকা নগদ ৫০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় উক্ত বখাটেরা। আমি সদর থানায় বিষয়টি জানিয়েছি। এবং এব্যাপারে মামলার প্রস্ত্রতি চলছে বলেও জানান তিনি। এছাড়াও এই বিষয়টির সাথে তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ জড়িত থাকতে পারে বলেও তিনি জানান।

আওয়ামীলীগ নেতাকে ডেকে নেয়া পলি আক্তার বলেন,আমার বড় বোনের বাড়ীতে তার ঘর উঠানো নিয়ে জামেলা চলছে সেই জামেলার একটি সুষ্ঠ সমাধানের লক্ষে বিচার সালিসীর আলাপ করার জন্য ইউসুফকে মাঠপাড়ার ভাড়া ফ্লাটে আসতে বলি । পরে বিকালে ইউসুফ আমার বাসায় আসা মাত্র হঠাৎ করে আমার বাড়ী ওয়ালার ছেলে নাসির তার দলবল নিয়ে আমার ফ্লাটে ডুকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে এসব কর্মকান্ড করে। আমির এর সুষ্ঠ বিচার চাই।

অভিযুক্ত বাড়ী ওয়ালার ছেলে নাসির এর আগে ইমুতে পলি আক্তারকে বিরক্ত করতো। পরে নাসিরকে ব্লাক করে সে। এর পর থেকে পলির উপর ক্ষুব্দ ছিলো নাসির এমন অভিযোগও করেন পলি আক্তার।

এব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, এব্যাপারে এখনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি তবে। অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে তিনি জানান

সর্বশেষ নিউজ