২৪, ফেব্রুয়ারি, ২০২১, বুধবার

‘রান করার জন্য টাকা পাই’

অনেকের মতে, প্রথম দিনের খেলা শেষে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের অবস্থা সমান সমান। কারণ প্রথম দিন ৫ উইকেট তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ।

অন্যদিকে সমান সমান ভাবতে মোটেই রাজি নয় একাংশ। কারণ চট্টগ্রামে মেয়ার্সের মতো বোনার যদি দাঁড়িয়ে যায় তা হলে দৃশ্যপটই পাল্টে যাবে।

ইতিমধ্যে ৭৮ রান সংগ্রহ করে ফেলেছেন বোনার। তাইজুল-মিরাজদের বল ভালোই সামলে নিয়েছেন। আবু জায়েদ রাহির ছোবলকেও প্রতিহত করে যাচ্ছেন।

সব মিলিয়ে মুমিনুলদের গলার কাঁটা এখন বোনার। এ কাঁটা দূর করতে না পারলে বড় সফরকারীদের বড় সংগ্রহে চাপা পড়বে বাংলাদেশ।

তা ছাড়া প্রথম দিন শেষে বোনারের মুখে আত্মবিশ্বাস ঝড়ল। তিনি জানালেন, লক্ষ্য একটিই। রান করা। কারণ রান করার জন্য টাকা পান তিনি।

নিজের ওপর চাপ তৈরি করাই যাঁর সাফল্যের মূলমন্ত্র, ‘আমি যে ইনিংসই খেলি না কেন, নিজের ওপর চাপ নিয়ে নিই।’

সেই চাপের সঙ্গে যোগ করে নেন চরম পেশাদারি মনোভাবও। শীর্ষ খেলোয়াড়রা এই সফরে এলে হয়তো খেলারই সুযোগ পেতেন না বোনার। সুযোগ যখন পেয়েছেন, তখন পারিশ্রমিকের পুরোটা পুষিয়ে দেওয়ার উপলব্ধিও তাঁর কথায়, ‘আমাদের পারিশ্রমিকই দেওয়া হয় রান করার জন্য। সেই সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলার জন্যও। খেলতে নামলে সেটিই করার চেষ্টা থাকে আমার।’ চট্টগ্রামের সঙ্গে ঢাকার উইকেটের পার্থক্য খুব একটা দেখেননি বলে গেম প্ল্যানও বদলাননি বোনার, “এখানে বাউন্স সামান্য বেশি হলেও উইকেট চট্টগ্রামের মতোই। কাজেই একই গেম প্ল্যানে খেলছি। সামনের পায়ে যত বেশি সম্ভব বল খেলার চেষ্টা করে গেছি। যতটা সম্ভব ‘ভি’-এর মধ্যে খেলতে চেয়েছি।”

জশুয়া সিলভাকে নিয়ে আজ দলকে আরো অনেকটা পথ এগিয়ে দিতে চান বোনার, ‘আজকে যদিও কিছু সফট ডিসমিসাল ছিল। খেলায় এমনটি হতেই পারে। তবে আমি আর জশ এখনো আছি। আমাদের দুজনের আরো যতটা সম্ভব ব্যাট করা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ৩৫০ ছাড়ানো স্কোরে নিয়ে যেতে চাই দলকে। আমি মনে করি, সেটিই দারুণ সংগ্রহ হবে।’ ঢাকার উইকেটে স্পিন সামলানোর জন্য বোনারের কাছে এটিই অব্যর্থ মন্ত্র, ‘যতটা সম্ভব উইথ দ্য স্পিন খেলতে হবে। আর উইকেটের চরিত্রের কারণে খেলতে হবে সামনের পায়েও।’

সর্বশেষ নিউজ