২৪, অক্টোবর, ২০২১, রোববার

শ্রীপুরে স্ত্রীকে হত্যা করে মরদেহ ঝুলিয়ে পালিয়ে যাবার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে

আরিফ প্রধান :গাজীপুরের শ্রীপুরে স্ত্রীকে পিটিয়ে মারধর করে হত্যার পর মরদেহ ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলিয়ে আত্নহত্যা বলে পালিয়ে যাবার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে।

শনিবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে উপজেলার বরমী ইউনিয়নের সাতখামাইর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত মনোয়ার হোসেন মজনু সাতখামাইর গ্রামের নূরু ফকিরের সন্তান।

স্বজনরা জানায়, খেতে না চাওয়ায় নিজের শিশু মেয়েটিকে চড় দিয়েছিলেন খালেদা বেগম শিলা (৩৮)। আর তা দেখেই ছুটে গিয়ে তাঁর স্বামী তাঁর বুকে সজোরে ঘুষি মারেন। লুটিয়ে পড়লে উপর্যুপরি লাথি মারেন বুকে। একপর্যায়ে শিশুমেয়েকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে শিলার ওপর নির্যাতন চালান। এতে নিস্তেজ হয়ে পড়লে মরদেহ ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রেখে শিলার স্বজনদের ‘আত্মহত্যার খবর’ জানিয়ে পালিয়ে যান তাঁর স্বামী।

শিলা মজনুর দ্বিতীয় স্ত্রী। প্রায় ১১ বছর আগে বিয়ে হয়েছিল তাঁদের। বিয়ের পর থেকে শিলা তাঁর বাবার বাড়িসংলগ্ন পৈতৃক জমিতে ঘর
তুলে সেখানেই বসবাস করছিলেন। আট বছর বয়সী তাঁদের এক শিশুমেয়ে রয়েছে।

শিলার ছোট ভাই মেহেদি হাসান রনি জানান, রাত প্রায় সোয়া দশটার দিকে তাঁর ভাগনি ছুটে এসে বলছিল, আব্বু আম্মুরে মারতাছে।এরই মধ্যে মজনু তাঁদের বাড়িতে এসে ‘শিলা আত্মহত্যা করতাছে’ বলেই চলে যান। তাঁরা সেখানে গিয়ে শিলার ঝুলন্ত মরদেহ পান।

শিলার শিশুমেয়ে মায়মুনা আক্তার মম জানায়, তাঁর মা-বাবা দুইজন ঝগড়া করছিলেন। এতে সে রাতের খাবার না খেয়ে শুয়ে পড়েছিল। বারবার তাকে খেতে বললেও খাচ্ছিল না। এতে রাগ করে তার মা তাকে চড় মারে। তা দেখেই ছুটে গিয়ে তার বাবা তার মার বুকে ঘুষি মারেন। চিৎকার দিয়ে মাটিতে পড়ে গেলে তার মার বুকে উপর্যুপরি লাথি
মারেন। একপর্যায়ে তার বাবা তাঁকে ঘর থেকে বের করে দেন।

সর্বশেষ নিউজ