৬, জুলাই, ২০২২, বুধবার

সবার সমন্বয়ে গঠিত হবে আফগানিস্তানের নতুন সরকার : তালেবান মুখপাত্র

আফগানিস্তানের নতুন সরকার ব্যবস্থা সবার সমন্বয়ে গঠিত হবে বলে মন্তব্য করেছেন তালেবানের কালচারাল কমিশনের মুখপাত্র আবদুল কাহার বলখি। শনিবার কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার সাথে সাক্ষাৎকারে এই মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘নতুন সমন্বিত সরকার ব্যবস্থা গঠনে আলোচনা করা হচ্ছে, তবে আমার কাছে এখনো বিস্তারিত কোনো তথ্য নেই যে কে সরকারে থাকবে এবং কে থাকবে না।’

সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, সাথে সাথে আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলেই থাকবে না কান্দাহারে সরিয়ে নেয়া হবে সেই বিষয়েও আলোচনা করা হচ্ছে।

কাবুল বিমানবন্দরের সঙ্ঘাতের ব্ষিয়টি স্বীকার করে আবদুল কাহার বলখি বলেন, কাবুল বিমানবন্দরে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কারণে। কারণ, মার্কিন সরকার হাজার হাজার ব্যক্তিকে সরিয়ে নেয়ার জন্য তাড়াহুড়া করেছে বলে এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে।

২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রে সন্ত্রাসী হামলার জেরে আফগানিস্তানে আগ্রাসন চালায় মার্কিন বাহিনী। অত্যাধুনিক সমরাস্ত্রসজ্জ্বিত মার্কিন সৈন্যদের হামলায় আফগানিস্তানের তৎকালীন তালেবান সরকার পিছু হটে।

তবে একটানা দুই দশক যুদ্ধ চলে দেশটিতে।

দীর্ঘ দুই দশক আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের আগ্রাসনের পর ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে কাতারের দোহায় এক শান্তিচুক্তির মাধ্যমে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহার করতে সম্মত হয় যুক্তরাষ্ট্র। এর বিপরীতে আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় অংশ নিতে তালেবান সম্মত হয়।

এই বছরের মে মাসে সৈন্য প্রত্যাহারের কথা থাকলেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এপ্রিলে এক ঘোষণায় ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সৈন্য প্রত্যাহারের কথা জানান। পরে জুলাই সময়সীমা আরো কমিয়ে এনে ৩১ আগস্টের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সব মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন তিনি।

মার্কিনিদের সাথে চুক্তি অনুসারে আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সরকারের সাথে তালেবানের সমঝোতায় আসার কথা থাকলে কোনো সমঝোতায় পৌঁছাতে পারেনি দুই পক্ষ। সমঝোতায় না পৌঁছানোর জেরে তালেবান আফগানিস্তান নিয়ন্ত্রণে অভিযান শুরু করে।

৬ আগস্ট প্রথম প্রাদেশিক রাজধানী হিসেবে দক্ষিণাঞ্চলীয় নিমরোজ প্রদেশের রাজধানী যারানজ দখল করে তারা। যারানজ নিয়ন্ত্রণে নেয়ার ১০ দিনের মাথায় ১৫ আগস্ট কাবুল দখল করে তালেবান যোদ্ধারা।

সূত্র : আলজাজিরা

সর্বশেষ নিউজ