৭, জুলাই, ২০২২, বৃহস্পতিবার

সিরাজদিখানে পুকুরে গরু ঘরের ঢালা দিয়ে পানি দূষিত করার অভিযোগ

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) সংবাদদাতাঃ মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে পুকুরে গরু ঘরের ঢালা দিয়ে গরুর গোবর ও ময়লা ফেলে পানি দূষিত করার অভিযোগ পাওয়াগেছে। উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের মলপদিয়া গ্রামের মো. রানা কালের পুকুরে এই ময়লা ও গোবর ফেলছে বলে অভিযোগ করেন আব্দুর সালাম কালেন ছেলে মো. রানা কাল।

অভিযোগ সূত্রে যানাযায়, আব্দুর সালাম বেপারীর ছেলে মো. বিল্লাল বেপারী, মো. মনির বেপারী, আনোয়ার বেপারিরা তাদের বসত বাড়ীর পুকুরের পাশে দির্ঘদিন ধরে একটি গরুর খামার করে গরু পালন করছে। সম্প্রতি তারা তাদের গরুর খামারে ঢালা পুকুরে দেওয়ায় ও পুকুরের পানিতে গরুর গোবর, বজ্র্য পদার্থ, মল-মূত্র, পানিতে মিশে পুকুরের পানি দূষিত হয়ে যাচ্ছে। এই পুকুরটির পানি এই এলাকার ৩টি পরিবার নিয়মিত করত পানি দূষিত হওয়ায় তারা এখন চরম বিপাকে পরেছে। এই পুকুরের পানি ব্যবহার করে বাড়ীর শিশু ও বাযজ্যৈষ্ঠরা বিভিন্ন চর্মরোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এ অবস্থায় পুকুরের পানি ব্যবহার করা সকলের জন্য ঝুকিপূর্ন হয়ে পরছে।

মো. মাহিন কাল বলে, আমি এই পুকুরে গোছল করার পর থেকে আমার সরিরের বিভিন্ন স্থানে চুলকানি হয়েছে। এই চুলকানি থেকে আমার শরিরে এখন বড় বড় ঘাঁ হয়ে যাচ্ছে। অনক ডাক্তার দেখিয়ে কিছুটা সুস্থ হলেও আমার শরিরে ও পায়ে দেখেন কত বড় বড় ঘাঁ রয়ে গেছে।

স্থানিয় হুমাউনের স্ত্রী জোসনা বেগম বলেন, এই পুরের পানি দিয়ে আমরা আমাদের পরিবারের সকল কাজ করতাম। কিন্তু বিল্লাল বেপারির গরুর গোবরে ঢালার কারনে পনি সম্পূর্ন পচে গেছে। এখন আর এই পানি ব্যবহার করার কোন ব্যবস্থা নাই। আমাদের এলাকার কলের পানি দিয়ে ভাত তরকারি রন্না করতে তা কালো হয়ে যায় তাই আমরা সবাই পুকুরের পানি ব্যবহার করতাম কিন্তু এখন আর ব্যবহার করতে পারছি না।

আব্দুল ছালাম কালের স্ত্রী রোজিনা খাতুন বলেন, আমাদের এই পুকুরের পানি আয়নার মত পরিস্কার ছিল কিন্তু সালাম বেপারির ছেলেরা পুকুরে ময়লা ফেলে পুকুরের পানি নষ্ট করে ফেলছে। আমার ছেলে ও নাতিরদের এই পুকুরে গোছল করার কারনে তাদের শরিরের বিভিন্ন যায়গায় পানি গোটা ও চুলকানি হয়েছে। আমরা চাই এই পুকুরটা যেন আগের মত পরিস্কার করা হয় আর এলাকার সবাই যেন এই পুকুরের পানি ব্যবহার করতে পারে।
অভিযোগের বিষয়ে মনির ব্যাপারির কাছে যানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমরা গরুর কোন ঢালা পুকুরে দেইনাই। তবে পুকুরের কাছেই আমাদের গরু ঘর। যদি আমাদের দ্বারা কারো কনো ক্ষতি হয় আমরা তা সমাধান করে দিব।

ইউপি সদস্য মো. শাহাবুদ্দিন বলেন, আমি বিষটি যেনে সালাম বেপারি ও রানা কাল উভয়ের বাড়ীতে গিয়েছিলাম তবে তারা আমার কাছে যায়গার সমস্যা নিয়ে বলেছিল কিন্তু পুকুরে ময়লার ব্যাপারে কিছু বলেনাই। তবে আমি দেখেছি পুকুরের পানি পচে গেছে আর তারা উভয় পক্ষই খুব ক্ষিপ্ত।
সিরাজদিখান উপজেলা স্যানিটারী ইন্সপেক্টর মো. শাহ আলম বলেন, এই বিষয়টি এখনো আমাকে কেও যানায় নি যানাযে ব্যবস্থানিব।

সর্বশেষ নিউজ