৬, জুলাই, ২০২২, বুধবার

হঠাৎ করেই শিমুলিয়ায় লঞ্চ চলাচল বন্ধ, ফেরিতে অতিরিক্ত চাপ

আজ রোববার সকালে চালু হওয়া বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে লঞ্চ চলাচল হঠাৎ করেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এতে মুহূর্তের মধ্যে ফেরিঘাটে জড়ো হন কয়েক হাজার যাত্রী। এতে ফেরিতে অতিরিক্ত চাপ দেখা দেয়।

এদিকে আজ রোববার দুপুর ১২টা পর্যন্ত এ রুটে লঞ্চ চলাচল করার ঘোষণা দিয়েছিল লঞ্চ মালিক সমিতি। তবে তার আগেই হঠাৎকরে বেলা ১১টার সময় লঞ্চ বন্ধ করে দেয় মালিক সমিতি। যাত্রীদের মধ্যে ঘটে অসন্তোষ দেখা দেয়। পরে অবশ্য প্রশাসনের আশ্বাসে আধা ঘণ্টা পর পুনরায় চালু করে দেয় লঞ্চ চলাচল।

বাংলাবাজারঘাট লঞ্চমালিক সমিতি সূত্রে জানা যায়, সরকারের উচ্চপর্যায়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক রোববার সকাল থেকে দপুর ১২টা পর্যন্ত বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটে লঞ্চ চলাচলের ঘোষণা করে মালিক সমিতি।

কিন্তু হঠাৎ করেই বেলা পৌনে ১১টার দিকে তারা লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয়। লঞ্চমালিকদের অভিযোগ, শিমুলিয়াঘাটে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করার অভিযোগে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসন ৯টি লঞ্চকে পাঁচ হাজার টাকা করে জরিমানা করে।

লঞ্চমালিক সমিতির নেতারা বলেন, বাংলাবাজারঘাটে ঢাকামুখী যাত্রীদের প্রচণ্ড চাপের কারণে যাত্রীদের নিয়ন্ত্রণ করা দুষ্কর হয়ে পড়ে।

তারা আরও জানান, বাংলাবাজারঘাটে প্রশাসনের উপস্থিতিতেই যাত্রী তোলা হচ্ছে। তার পরও শিমুলিয়াঘাটে জরিমানার শিকার হতে হয়। তাই লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয় মালিক সমিতি।

এদিকে হঠাৎ করেই লঞ্চ চলাচল বন্ধ ঘোষণায় বিপাকে পড়েন ঘাটে অপেক্ষমাণ ঢাকামুখী যাত্রীরা। সকালে যেখানে ফেরিগুলো শুধু যানবাহন পারাপার করছিল, মুহূর্তের মধ্যে ফেরিঘাটে জড়ো হন কয়েক হাজার যাত্রী। ফেরি ক্যামেলিয়া তাই ঘাটে ভেড়ার সঙ্গে সঙ্গে হুড়মুড় করে যাত্রী বোঝাই হয়ে যায়।

বেলা সাড়ে ১১টায় কোনো যানবাহন ছাড়াই শুধু যাত্রী নিয়ে শিমুলিয়াঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে যায় ফেরিটি। এমনকি যাত্রী চাপে ঘাটে থাকা দুটি অ্যাম্বুলেন্সও তুলতে পারেনি।

বাংলাবাজারঘাটের বিআইডব্লিটিএর ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার হোসেন জানান, শিমুলিয়া প্রান্তে লঞ্চে জরিমানা করার কারণে ৩০ মিনিট লঞ্চ চলাচল বন্ধ ছিল।

কিন্তু ঘাটে আটকেপড়া যাত্রীর চাপে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আবার সব লঞ্চ চালু করে মালিক সমিতি।

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজারঘাটের ব্যবস্থাপক মো. সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, আজ সকাল থেকে লঞ্চ চালু হলে যাত্রীচাপ কিছুটা কম ছিল। হঠাৎ করে বেলা ১১টার দিকে লঞ্চ চলাচল বন্ধ করার পর ফেরিতে যাত্রীদের মারাত্মক চাপ বেড়ে যায়। ফেরিতে যাত্রীবাহী কোনো যানবাহন পার করা হচ্ছে না।

সর্বশেষ নিউজ