১৭, সেপ্টেম্বর, ২০২১, শুক্রবার

১০ জুন থেকে শরীয়তপুরে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: অবৈধ থ্রি হুইলার (এলপিজি), অটোরিক্সা, নসিমন, করিমন, ভটভটিসহ সড়কে ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল বন্ধের দাবিতে আগামী ১০ জুন থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে শরীয়তপুর জেলা সড়ক পরিবহন বাস-মিনিবাস মালিক-শ্রমিক ঐক্যপরিষদ।

আজ মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় শরীয়তপুর জেলা শহরের বাস-স্ট্যান্ড সংলগ্ন পরিবহন মালিক সমিতির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান তারা। ৯ জুনের মধ্যে শরীয়তপুরের বিভিণœ সড়কে উল্লেখিত অবৈধ যানবাহন চলাচল বন্ধের দাবিতে জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত কপি দেয়া হয়েছে। ৯ জুনের মধ্যে দাবি বাস্তবায়িত না হলে ১০ জুন থেকে শরীয়তপুরের সাথে ঢাকাসহ জেলার বিভিণœ সড়কে অনির্দিষ্টকালের জন্য যাত্রীবাহী বাস-মিনিবাস চলাচল বন্ধ থাকবে।

এর আগে শরীয়তপুর জেলা সড়ক পরিবহন বাস-মিনিবাস মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ যৌথভাবে এ সকল বিষয়ে ৩ জুন তারিখে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছিল। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, শরীয়তপুর জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি মোঃ ফারুক আহাম্মদ তালুকদার ও শরীয়তপুর আন্তঃজেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ফারুক চৌকিদার। এ সময় বক্তরা বলেন, শরীয়তপুর জেলা আঞ্চলিক পরিবহন কমিটি এবং সড়ক নিরাপত্তা কমিটির সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে জেলায় বিভিন্ন যাত্রীবাহী বাস-মিনিবাস চলাচলরত সড়কে অবৈধ থ্রি-হুইলার (এলপিজি), অটোরিক্সা, নসিমন, করিমন, ভটভটি চলাফেরা করছে। যাদের কোন বৈধ কাগজপত্র এমনকি ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই এবং অপ্রাপ্ত বয়স্ক চালক দ্বারা চালানোর ফলে যত্রতত্র দুর্ঘটনা ঘটছে।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শরীয়তপুর জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সহ-সভাপতি আব্দুল বারেক মুন্সী। অপরদিকে আজ বিকাল ৪ টায় শরীয়তপুর জেলা শহরের পুলিশ বক্স এর নিকট আর কে মটরস সু-রুমে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছে শরীয়তপুর জেলা সি এনজি অটোরিকসা শ্রমিক ইউনিয়ন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, শরীয়তপুর জেলা সি এনজি অটোরিকসা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি এডভোকেট আজিজুল রহমান রোকন। তারা বলেন, আমাদের বৈধ সব কাগজপত্র থাকার পরও শরীয়তপুর জেলা সড়ক পরিবহন বাস-মিনিবাস মালিক-শ্রমিক ঐক্যপরিষদের বাধার কারনে আমাদের রেজিষ্ট্রেশন দিচ্ছে না প্রশাসক।

শরীয়তপুর জেলা সি এনজি অটোরিকসা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি এডভোকেট আজিজুল রহমান রোকন বলেন, সি এনজি (এলপিজি), অটোরিক্সাসহ আমাদের গাড়ীর সব কাগজ পত্র আছে। উল্টো শরীয়তপুওে ১৭২টি বাসের মধ্যে ৩০/৩২টি বাসের কাগজ পত্র আছে। বাকী ১৪০টি বাসে কোন কাগজ পত্র নেই। নেই কোন ফিটনেজ। তারাই অবৈধভাবে গাড়ী চালাচ্ছে।
শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক পাভেজ হাসান বলেন, বাস-শ্রমিকরা যে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে। তা আপনাদের মাধ্যমে শুনলাম। বিষয়টি নিরসনের চেষ্টা করছি।

সর্বশেষ নিউজ