১৭, আগস্ট, ২০২২, বুধবার

সরকারের বিরোধিতা মানেই দেশদ্রোহিতা নয় : ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট

সরকারের বিরোধিতা করলেই তা দেশদ্রোহিতা নয় বলে মত দিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট।

বুধবার ভারতের সুপ্রিম কোর্ট বলেন, সরকার-বিরোধী মত পোষণ করা বা সরকারের বিরোধিতা করলেই তা দেশদ্রোহিতা, এমনটা বলা যায় না।

জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা ন্যাশনাল কনফারেন্স (এনসি) নেতা ফারুক আবদুল্লার বিরুদ্ধে একটি আবেদনের শুনানিতে এ পর্যবেক্ষণ দেন সুপ্রিম কোর্ট। এসময় ফারুক আবদুল্লার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাও খারিজ করা হয়েছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ২০১৯ সালের আগস্টে জম্মু-কাশ্মীর থেকে বিলোপ করে সংবিধানের বিশেষ ৩৭০ ধারা। সেই পদক্ষেপের বিরোধিতা করে সরব হয়েছিলেন প্রবীণ রাজনীতিবিদ ফারুক আবুদল্লা। তার সেই সরব হওয়ার মধ্যে ‘রাষ্ট্রদ্রোহিতা’র ইঙ্গিত পেয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা দায়ের করা হয়েছিল। সেই মামলার শুনানিতে বুধবার এমন মন্তব্য করে আদালতের ডিভিশন বেঞ্চ। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে একথা বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৫ অগাস্ট ২০১৯ থেকে গৃহবন্দি ছিলেন ফারুক আবদুল্লা সহ জম্মু-কাশ্মীরের অন্য রাজনৈতিক কর্মীরা। অপর একজন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতিকেও রাখা হয়েছিল গৃহবন্দি করে। ২০২০ সালের ডিসেম্বরে মুক্তি দেওয়া হয় ফারুক আবদুল্লাকে।
মেহবুবাও মুক্তি পান।

এর আগে ২০১৬ সালেও সুপ্রিম কোর্ট বলেছিল- সরকারি নীতি অর্থাৎ সরকারের বিরুদ্ধে মুখ খোলা মানেই রাষ্ট্রদ্রোহিতা নয়। এমনটা হলে কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থাও আর নেওয়া যায় না।

সে সময় রাষ্ট্রদ্রোহিতা নিয়ে ভারত জুড়ে বিতর্কের ঝড় বয়ে গিয়েছিল। রাষ্ট্রদ্রোহিতা আইনে একের পর এক মামলা করা হচ্ছিল। বিভিন্ন মহল থেকে ওই আইন বাতিলের দাবিও উঠতে শুরু করে। আইনজীবী প্রশান্ত ভূষণ এ নিয়ে হস্থক্ষেপ দাবি করে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলে আদালত এমন কথা বলেছিলেন।

সূত্র: আনন্দবাজার।

সর্বশেষ নিউজ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আজকে যেসব দেশ মানবাধিকারের প্রশ্ন তোলে, আমাদের ওপর স্যাংশন (নিষেধাজ্ঞা) দেয়, তারা তো খুনিদের আশ্রয় দিয়ে রেখেছে।  জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ আয়োজিত সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই খুনি রাশেদ। এই রাশেদ ছিল মিন্টু রোডে যে অপারেশন হয় সেই অপারেশনের কমান্ডিং অফিসার। আমেরিকার সঙ্গে আমরা বারবার কথা বলছি, কিন্তু তারা তাকে (রাশেদ) দিচ্ছে না। এদের কাছ থেকে আমাদের মানবতার সবক নিতে হয়। তারা আমাদেরকে মানবতার সবক শেখায় যারা আমার বাবা, মা, নারী, শিশু- তাদেরকে হত্যা করেছে।  শেখ হাসিনা বলেন, আজকে চারিদিকে অনেক প্রশ্ন, মানবাধিকারের প্রশ্ন আসে। মানবাধিকারের কথা বলা হয়, আমাদের সরকারকে মানবাধিকারের ব্যাপারে প্রশ্ন করে। যারা এই প্রশ্ন করে তাদের কাছে আমার জিজ্ঞাসা, আমাদের মানবাধিকার, ১৫ আগস্ট আমরা যারা আপনজন হারিয়েছি তাদের মানবাধিকার কোথায় ছিল? আমাদের তো বিচার চাওয়ার অধিকার ছিল না। আমি আমার বাবা-মা হারিয়েছি, কিন্তু আমি মামলা করতে পারব না।  তিনি বলেন, ৩২ নম্বর, ওই ধানমণ্ডির। লাশগুলো তো পড়েছিল। কত স্লোগান, তুমি আছ যেখানে, আমরা সেখানে। কোথায় ছিল সেই মানুষগুলো? একটি মানুষ ছিল না সাহস করে এগিয়ে আসার? একটি মানুষ ছিল না প্রতিবাদ করার? কেন করতে পারিনি? এত বড় সংগঠন, এত সমর্থক, এত লোক- কেউ তো একটা কথা বলার সাহস পায়নি। ১৫ আগস্ট থেকে ১৬ আগস্ট সেই লাশ পড়েছিল। বিচারের বাণী তো নিভৃতে কাঁদে। আমি ফিরে এসেও তো বিচার করতে পারিনি। আমাদের তো মামলা করারও অধিকার ছিল না। কারণ ইনডেমনিটি দিয়ে তাদেরকে পুরস্কৃত করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আজকে যেসব দেশ মানবাধিকারের প্রশ্ন তোলে, আমাদের ওপর স্যাংশন (নিষেধাজ্ঞা) দেয়, তারা তো খুনিদের আশ্রয় দিয়ে রেখেছে। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ আয়োজিত সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই খুনি রাশেদ। এই রাশেদ ছিল মিন্টু রোডে যে অপারেশন হয় সেই অপারেশনের কমান্ডিং অফিসার। আমেরিকার সঙ্গে আমরা বারবার কথা বলছি, কিন্তু তারা তাকে (রাশেদ) দিচ্ছে না। এদের কাছ থেকে আমাদের মানবতার সবক নিতে হয়। তারা আমাদেরকে মানবতার সবক শেখায় যারা আমার বাবা, মা, নারী, শিশু- তাদেরকে হত্যা করেছে। শেখ হাসিনা বলেন, আজকে চারিদিকে অনেক প্রশ্ন, মানবাধিকারের প্রশ্ন আসে। মানবাধিকারের কথা বলা হয়, আমাদের সরকারকে মানবাধিকারের ব্যাপারে প্রশ্ন করে। যারা এই প্রশ্ন করে তাদের কাছে আমার জিজ্ঞাসা, আমাদের মানবাধিকার, ১৫ আগস্ট আমরা যারা আপনজন হারিয়েছি তাদের মানবাধিকার কোথায় ছিল? আমাদের তো বিচার চাওয়ার অধিকার ছিল না। আমি আমার বাবা-মা হারিয়েছি, কিন্তু আমি মামলা করতে পারব না। তিনি বলেন, ৩২ নম্বর, ওই ধানমণ্ডির। লাশগুলো তো পড়েছিল। কত স্লোগান, তুমি আছ যেখানে, আমরা সেখানে। কোথায় ছিল সেই মানুষগুলো? একটি মানুষ ছিল না সাহস করে এগিয়ে আসার? একটি মানুষ ছিল না প্রতিবাদ করার? কেন করতে পারিনি? এত বড় সংগঠন, এত সমর্থক, এত লোক- কেউ তো একটা কথা বলার সাহস পায়নি। ১৫ আগস্ট থেকে ১৬ আগস্ট সেই লাশ পড়েছিল। বিচারের বাণী তো নিভৃতে কাঁদে। আমি ফিরে এসেও তো বিচার করতে পারিনি। আমাদের তো মামলা করারও অধিকার ছিল না। কারণ ইনডেমনিটি দিয়ে তাদেরকে পুরস্কৃত করা হয়েছে।