৮, ডিসেম্বর, ২০২২, বৃহস্পতিবার

জামায়াত আমিরের বক্তব্যে বিএনপিতে অস্বস্তি

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট নিয়ে জোটের অন্যতম শরিক জামায়াতে ইসলামীর আমির ডা. শফিকুর রহমানের দেওয়া এক বক্তব্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। এ নিয়ে বিএনপিতে এক ধরনের অস্বস্তি তৈরি হয়েছে।

দলটির নেতাদের কেউ কেউ বলছেন, বিএনপির সঙ্গে থাকা নিয়ে জামায়াত আমির যে বক্তব্য দিয়েছেন তা বিএনপির জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর এবং অস্বস্তিকর। তবে দলটির সিনিয়র নেতারা এ পরিস্থিতিতে কথা বলতে চাইছেন না।

ছড়িয়ে পড়া ওই বক্তব্যে জামায়াতের আমির ডা. শফিকুর রহমানকে বলতে শোনা যায়, আমরা এতদিন একটা জোটে ছিলাম। ছিলাম বলে আপনারা হয়তো ভাবছেন, কিছু হয়ে গেছে নাকি? আমি বলি হয়ে গেছে। ২০০৬ সাল পর্যন্ত এটি একটি জোট ছিল। ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর জোট তার দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছে। সেদিন বাংলাদেশ পথ হারিয়েছিল। সেটা আর ফিরে আসেনি।

তিনি বলেন, বছরের পর বছর এ ধরনের অকার্যকর জোট চলতে পারে না। এই জোটের সঙ্গে বিভিন্ন দল যারা আছে, বিশেষ করে প্রধান দলের (বিএনপি) এই জোটকে কার্যকর করার কোনো চিন্তা নেই। বিষয়টা আমাদের কাছে স্পষ্ট দিবালোকের মতো এবং তারা আমাদের সঙ্গে বসে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখন বাস্তবতা হচ্ছে নিজস্ব অবস্থান থেকে আল্লাহর ওপর ভর করে পথচলা। তবে হ্যাঁ, জাতীয় স্বার্থে একই দাবিতে যুগপৎ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করবো ইনশাআল্লাহ।

বিএনপির সঙ্গে জোট নিয়ে আলোচনা হয়েছে উল্লেখ করে জামায়াতের আমির ওই বক্তব্যে বলেন, আমরা তাদের সঙ্গে খোলামেলা আলোচনা করেছি। তারা ঐকমত্য পোষণ করেছে। তারা আর কোনো জোট করবে না। এখন যার যার অবস্থান থেকে সর্বোচ্চটা দিয়ে চেষ্টা করবো। যদি আল্লাহ আমাদের তৌফিক দান করেন তাহলে আমাদের আগামী দিনগুলোতে কঠিন প্রস্তুতি নিতে হবে। অনেক বেশি ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। দোয়া করেন, এসব ত্যাগ যেন আল্লাহর দরবারে মঙ্গলজনক হয়। এ ত্যাগের বিনিময়ে আল্লাহ পাক যেন আমাদের পবিত্র একটি দেশ দান করেন। যে দেশটা কোরআনের আইনে পরিচালিত হবে।

এ নিয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির একজন ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, অন্য রাজনৈতিক দলের কাঁধে পা রেখে জামায়াতের সামনে চলার নীতি। বিএনপির সঙ্গে থেকে জামায়াতে ইসলামের আমির যে বক্তব্য দিয়েছেন তা বিএনপির জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর এবং অস্বস্তিকর। তাদের বক্তব্যের ভিডিও পর্যালোচনা হচ্ছে। এ বিষয়ে হাইকমান্ড সিদ্ধান্ত নেবে।

জামাতের আমিরের এই বক্তব্যের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে জোটের সমন্বয়কারী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান জাগো নিউজকে বলেন, আমি ভিডিওটি দেখিনি। তাই এ বিষয়ে কোনো বক্তব্য দেবো না।।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার বলেন, জামায়াত জোট ছেড়েছে এমন কোনো সংবাদ আমাদের কাছে নেই। তবে আমার কাছে মনে হয় না জামায়াত-বিএনপি জোট ছেড়ে দেবে। জামায়াত যদি এই ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত নেয় তাহলে সেটা জামায়াতের ভুল সিদ্ধান্ত হবে বলেও আমি মনে করি।

এদিকে জামায়াতের আমিরের বক্তব্যের যে ভিডিও ছড়িয়ে পড়ছে, সে বিষয়ে দলটির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা আব্দুল হালিম দাবি করেন, আমিরের বক্তব্য সঠিকভাবে উপস্থাপন হয়নি। জামায়াতে ইসলামী বিএনপি জোটের সঙ্গে আছে, জোট ছাড়েনি। তবে দীর্ঘ এক বছর পর্যন্ত জোটের কোনো বৈঠক হয়নি। জোটের যে গুরুত্ব এবং তাৎপর্য বিএনপি সেটিকে যথাযথ গুরুত্ব দিচ্ছে না বলেই বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমির তার মনোভাব প্রকাশ করেছেন।

১৯৯৯ সালের ৬ জানুয়ারি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, জামায়াতের তৎকালীন আমির গোলাম আযম এবং ইসলামী ঐক্যজোটের তৎকালীন চেয়ারম্যান শায়খুল হাদিস আজিজুল হককে সঙ্গে নিয়ে চারদলীয় জোট গঠন করেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সে জোট সম্প্রসারিত হয়ে পরে সেটি ২০ দলীয় জোটে রূপ নেয়।

সর্বশেষ নিউজ