২৫, অক্টোবর, ২০২০, রোববার

টঙ্গিবাড়ীতে প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বিরুদ্ধে ব্যাপক দূর্ণীতি ও অনিয়মের অভিযোগ

টঙ্গিবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ স্কুল কমিটি অনুমোদন না করে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তাকে দিয়ে এডহোক কমিটি গঠন করে স্কুলের ক্ষুদ্র মেরামতের ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা করে আত্মসাৎ , ৯২ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্লিপ এর বরাদ্ধকৃত টাকা হতে ৬ হাজার টাকা করে ঘুষ গ্রহন, বদলি বানিজ্যসহ টঙ্গিবাড়ী শিক্ষা কর্মকর্তা আঞ্জুমান আরা এর বিরুদ্ধে ব্যাপক দূর্ণীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিগত ফেব্রুয়ারী মাসে স্থাণীয়ভাবে প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটি গঠন করে দিলেও উক্ত কমিটিগুলো অনুমোদন না দিয়ে শিক্ষা কর্মকর্তা স্কুলেন ক্ষুদ্র মেরামত ও স্লিপের টাকা আত্মসাৎতের জন্য সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা শাখাওয়াত হোসেনকে দিয়ে এডহোক কমিটি গঠন করে টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে স্থাণীয়ভাবে নির্বাচিত কমিটির সদস্যরা ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।

এ ব্যাপারে স্কুলের কতিপয় স্থাণীয়ভাবে নির্বাচিত সভাপতি নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, শিক্ষা কর্মকর্তা স্কুল উন্নয়নের টাকা আত্মসাৎ করার জন্য কমিটি অনুমোদন না দিয়ে নিজ হাতে ক্ষমতা রেখে টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

আড়িয়ল ২নং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি বি. শাহিন জানান, শিক্ষা কর্মকর্তা স্লিপের টাকা হতে ৬ হাজার টাকা করে ঘুষ নিয়েছে এটাতো উপজেলার সব স্কুলের কমিটির সাথে যোগাযোগ করলে সবাই বলবে এ বিষয়টা উপজেলার অনেকেই জানে।

সম্প্রতি ৯২ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্লিপের টাকার ৬ হাজার টাকা করে মোট ৫লক্ষ ৫২ হাজার টাকা শিক্ষা কর্মকর্তার ঘুষ গ্রহন নিয়ে সালমা বেগম নামের এক আইনজীবী তার ফেসবুক পেইজে স্ট্যার্টাস দিলে তা মুহুর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়।
ওই আইনজীবী লিখেন,টংগিবাড়ী উপজেলা শিক্ষা অফিস ৯২ টি স্কুল থেকে ৬ হাজার টাকা করে মোট ৫ লক্ষ ৫২ হাজার টাকা প্রকাশ্যে সিলিপের বরাদ্ধ হতে ঘুষ নিলো দেখার কেউ নেই।

এ ব্যাপারে সাংবাদিকরা উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করলে সে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পূর্ন মিথ্যা বলে দাবী করেন। তবে কয়টি স্কুলের ক্ষুদ্র মেরামত ও স্লিপের টাকা আসছে জানতে চাইলে সে কোন সংখ্যা না বলে সাংবাদিকদের তার অফিসে যেতে বলেন। পরে মঙ্গলবার বিকাল ৩ টার দিকে বিক্রমপুর টঙ্গিবাড়ী প্রেস ক্লাবের কতিপয় সদস্য তার অফিসে গেলে সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে সে গাঁ ঢাকা দেয়। তার অফিস বিকাল ৩টার দিকে গিয়ে বন্ধ পাওয়া গেছে। পরে তাকে না পেয়ে সাংবাদিকরা একাধিকবার ওই শিক্ষা কর্মকর্তার মোবাইলে ফোন দিলেও সে ফোনটি রিসিভ করেন নাই।

এ ব্যাপারে সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা শাখাওয়াত হোসেন জানান, করোনা ও স্থাণীয় এমপি মহোদয় বিদুৎশাহী সদস্য মনোনয়ন করে না দেওয়ায় কমিটি অনুমোদন দিতে বিলম্ব হচ্ছে।

সর্বশেষ নিউজ