২৭, অক্টোবর, ২০২০, মঙ্গলবার

ব্রিটেনে পাঁচ কোটি অনিরাপদ মাস্ক, সরকারের বিরুদ্ধে মামলা

করোনা ভাইরাস মহামারি রূপ নেয়ার পর স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য কেনা পাঁচ কোটি মাস্ক নিরাপদ নয় বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ সরকার৷ মাস্ক সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের মালিক সরকারের ‘বোর্ড অফ ট্রেড’- এর উপদেষ্টা৷ খবর ডয়চে ভেলের।

বিরোধী দলগুলো সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে জরুরি তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে৷

মাস্ক কেনার জন্য বিনিয়োগকারী ফার্ম আয়ান্দা ক্যাপিটেলের সঙ্গে এপ্রিলে ২৫ কোটি ২০ লাখ পাউন্ডের চুক্তি সই করে ব্রিটিশ সরকার৷ কিন্তু মাস্কগুলো নিরাপদ নয় বলে আদালতে মামলা করা হয়েছে সরকারের বিরুদ্ধে৷ এতে বলা হয়েছে, মাথায় ফাঁকা রাখার বদলে কান দুটো ফাঁকা রাখা হয়েছে এবং এগুলো যথেষ্ট ‘টাইট’ নয়৷ এ কারণে মাস্কগুলো সরকার বিতরণ করেননি৷

বৃহস্পতিবার কনজারভেটিভ সরকারের বিরুদ্ধে মামলাটি করেছে দুটি ক্যাম্পেইনিং গ্রুপ ‘দ্য গুড ল প্রজেক্ট’ এবং ‘এভরি ডক্টর’৷ তারা আদালতের কাছে জানতে চেয়েছে, চুক্তি স্বাক্ষরের আগে কেনো পিপিই মাস্কগুলো কেনো যথাযথভাবে দেখে নেয়া হয়নি৷ গ্রুপ দুটোর দাবি, ৫ কোটি মাস্কের দাম কমপক্ষে ১৫ কোটি পাউন্ড৷ যদিও সরকার জানায়নি কত দাম দিয়ে তারা এগুলো কিনেছে৷ চুক্তির বাকি অর্থও দেয়া হয়েছে কিনা বা আদৌ দেয়া হবে কিনা তা-ও অস্পষ্ট৷

মার্চে যুক্তরাজ্যে করোনা সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে এটা স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল যে, দেশটির চিকিৎসক আর নার্সদের জন্য প্রচুর মাস্ক, দস্তানা, গাউন এবং অন্যান্য প্রতিরক্ষা/প্রতিরোধক সরঞ্জামের প্রয়োজন হবে৷ বিশ্বের সব সরবরাহকারীর কাছ থেকেই তখন এসব উপকরণ কেনার হিড়িক পড়ে গিয়েছিল৷

সরকার মামলার প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছে, আয়ান্দা ক্যাপিটেলের মালিক এন্ড্রু মিলসের কাছ থেকে এই মাস্কগুলো কেনা হয়েছে, যিনি সরকারের ‘বোর্ড অফ ট্রেড’-এর একজন উপদেষ্টা৷ মিলস এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন৷ আয়ান্দা ক্যাপিটেলের প্রধান নির্বাহী টিম হরলিক দাবি করেছেন, সরকারের মানদণ্ড মেনেই মাস্কগুলো তৈরি করা হয়েছে এবং এগুলো অব্যবহারযোগ্য বা অনিরাপদ নয়৷

ব্রিটিশ সরকার জানিয়েছে, আয়ান্দার কাছ থেকে কেনা আরো ১৫ কোটি মাস্ক এখনো পরীক্ষা করে দেখা হয়নি৷ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, এই ঘটনায় তিনি খুবই হতাশ৷

সর্বশেষ নিউজ