২৯, অক্টোবর, ২০২০, বৃহস্পতিবার

সিরাজদিখানে কর্তব্যরত সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলা!

সিরাজদিখান (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে দৈনিক আমার সংবাদ ও রজত রেখা পত্রিকার সিরাজদিখান প্রতিনিধি আব্দুল্লাহ আল মাসুদ ও তার বড় ভাই আব্দুল্লাহ আল মামুনের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল শনিবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে উপজেলার বয়রাগাদী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের পশ্চিম পাশের পাকা রাস্তার উপর এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় সিরাজদিখান থানায় মনির (৪৫) ও আনোয়ার (৪৮),দ্বয়কে এজাহার নামীয় -১৫জনকে অজ্ঞাতনামা বিবাদী করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।

জানা যায়, গত শুক্রবার রাতে মজু পান করাকে কেন্দ্র করে গোবরদী ও বয়রাগাদী গ্রামের কিশোরদের সাথে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে বিষয়টি স্থানীয় ভাবে সমাধান করার জন্য গতকাল শনিবার (৮ আগষ্ট) গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের স্বমন্বয়ে বয়রাগাদী ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সালিশ বসে। সে সময় সংবাদের তথ্য সংগ্রহ করতে বড় ভাই আব্দুল্লাহ আল মামুনকে সাথে নিয়ে সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ সেখানে উপস্থিত হন। সালিশের রায় না মেনে স্থানীয় মনির (৪৫) ও তার বড় ভাই আনোয়ার (৪৮) দ্বয়ের নেতৃত্বে গোবরদী কিশোরদের উপর হামলা চালায়। সালিশের মধ্যে হামলার ভিডিও ফুটেজ ও স্থিরচিত্র তোলার সময় অভিযুক্ত ওই দুই ভাইয়ের নেতৃত্বে মেহেদী,সীমান্ত, সোহান,জিসান সহ ৪০-৫০ জনের সংঘবদ্ধ একটি দল সাংবাদিক মাসুদ ও তার ভাইয়ের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এলাকাবাসী তাদের আহত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করেন। অভিযুক্ত ওই দুইভাই বয়রাগাদী গ্রামের সাজা’র ছেলে।

সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ মুঠোফোনে জানান, বিকেলে বয়রাগাদী গ্রামের একটি বিচার সালিশে যাই। তখন বিচারের রায় না মেনে বয়রাগাদী গ্রামের লোকজন প্রতিপক্ষ গোবরদী গ্রামের লোকজনদের উপর হামলা চালায়। আমি তখন হামলার ভিডিও করছিলাম। মনির ও তার বড় ভাই আনোয়ার ভিডিও করতে দেখে ৪০-৫০ নিয়ে আমাদের উপর হামলা করে। পরে স্থানীয় লোকজন এসে আমাদের উদ্ধার করে। এবিষয়ে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ হয়েছে।

সাংবাদিক আব্দুল্লাহ আল মাসুদের বড় ভাই মামুন জানান সালীশের মধ্যে বয়রাগাদী গ্রামের লোকজন উত্তেজিত হয়ে লাঠি, ছুরি নিয়ে গোবরদী গ্রামের লোকজনের উপর হামলা চালায় তা দেখে আমার ভাই ওসি স্যারকে ফোনে জানালে ও ভিডিও ধারন করার সময় আমার ভাইকে মনির ও আনোয়ারের নেতৃত্বে আক্রমন করে। দ্বিতীয় বার আক্রমন করলে আমি বাধা দিলে আমাদের দুই ভাইকে মারাত্মক ভাবে আহত করে। অজ্ঞাত ভাবে আমার ভাইকে কেযেনো ছুরি দিয়ে আঘাত করে।

সালিশের সভাপতি ইউপি সদস্য মো.বাচ্চু দেওয়ান বলেন, সালিশটি প্রায় শেষ পর্যায়ে, সাজার পোলার মনিরের নেতৃত্বে সাংবাদিকের উপর হামলা করে।
বয়রাগাদী ইউপি ৮নং ওয়ার্ড সদস্য মো. ইয়াসিন বলেন,বিচারের শেষ পর্যায়ে সাংবাদিক ও তার ভাইয়ের উপর অতর্কিত হামলা হয়। আমি ও মোহাম্মদ আলী মিলে গাড়িতে উঠে তাদের নিয়ে চলে আসে ।

সাবেক ইউপি সদস্য মোহাম্মদ আলী বলেন, আমি সালিশে ছিলাম। বিচার শেষের দিকে বয়রাগাদীর কিছু পোলাপান হঠাৎ করে দোকান থেকে লাঠি নিয়ে সাংবাদিক মাসুদ ও তার ভাইয়ের উপর হামলা করে।
সিরাজদিখান থানা অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফরিদ উদ্দিন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। দ্রুতগতিতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ নিউজ