২৭, অক্টোবর, ২০২০, মঙ্গলবার

নরসিংদীতে ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে প্রতারণ করে প্রতিবন্ধীদের টাকা আত্মসাৎ ও নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগ

সাইফুল ইসলাম রুদ্র, নরসিংদী প্রতিনিধি: নরসিংদীতে দীর্ঘ সময় ধরে টিটু নামে এক প্রতারক ইউটিউব চ্যানেলের মাধ্যমে রমরমা প্রতারণার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। সে গরীব, দুঃখী সহ বিশেষ করে প্রতিবন্ধী মানুষদের সাক্ষাৎকার নিয়ে মানুষকে প্রতারণার ফাঁদে পেলে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রতারক টিটুর বিরুদ্ধে।

সম্প্রীতি তার ইউটিউব চ্যানেল আর এম বাংলা বিডি (ৎ স নধহমষধ নফ) তার অনেক কুকর্ম লক্ষ করা যায়। এদিকে প্রতারক টিটুর বিরুদ্ধে অনেক নারী কেলেঙ্কারীর অভিযোগও উঠেছে। এদিকে রোজিনা আক্তার লাইলী সংবাদ কর্মী রুদ্রকে এক নারী বলেন,“তাকে চলচ্চিত্রের নায়িকা ও মডেল তারকা বানাবে বলে তাকে ফাঁদে ফেলে একটি নাটকের শ্যুটিং করতে নিয়ে যায়। শ্যুটিং শেষে প্রতারক টিটু রাতে লাইলীর পাশে গিয়ে শুয়ে লাইলীর সাথে অনৈতিক কাজ করার চেষ্টা করে। তাই সে তার ইজ্জত বাঁচাতে শ্যুটিং স্পট থেকে পালিয়ে আসে।

শুধু তাই নয় লাইলীকে দিয়ে প্রতারক টিটু আরো জঘন্য কাজ করতে চেয়েছিল। সে লাইলীকে তার এক বন্ধুর সাথে উলঙ্গ অবস্থায় একটি সেলফি তোলার জন্য লোভনীয় প্রস্তাব দেয়। কিন্তু লাইলী তার কথায় রাজি না হলে লাইলীর কাছ থেকে আত্মসাৎ করা ২০ হাজার টাকাও প্রতারক টিটু ফেরত দেয় নাই।

পরবর্তীতে লাইলী প্রতারক টিটুর অনেক কথা ফাঁস করে। লাইলী আরো বলে যে, প্রতারক টিটু পাঁচদোনা বাজারে তার নিজস্ব দোকানে প্রতিনিয়ত মেয়ে মানুষ এনে তাদের সাথে অনৈতিক কর্মকান্ড করে। এছাড়া বিগত কয়েকদিন আগে প্রতারক টিটু সারারাত এক মেয়ের সাথে অনৈতিক কাজ করার পর উক্ত মেয়েকে অসুস্থ অবস্থায় লাইলীর বাসায় পাঠায়।

এদিকে প্রতারক টিটুর ১ম পর্বেই বেরিয়ে আসছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। সে বিভিন্ন সময় তার চ্যানেলের অজুহাত দেখিয়ে বিভিন্ন প্রতিবন্ধী এবং সাধারণ মানুষদের সহযোগিতার মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে নিজের পার্সোনাল বিকাশ নাম্বার ব্যবহার করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রতারক টিটুর বিরুদ্ধে। প্রতারক টিটু প্রথমত বেকার ছিল। তারপর সে হঠাৎ করে এসব অনৈতিক কর্মকান্ড করে লক্ষ লক্ষ টাকার মালিক হয়েছে।

এ বিষয়ে আজ ১২ ই আগষ্ট রোজ বুধবার সংবাদ কর্মী রুদ্রকে ডেকে নিয়ে টিটু বলেন, আমি যা কিছুই করি না কেন এগুলো আমার দৃষ্টিতে কোন অপরাধ নয়। তারপর তিনি সংবাদকর্মীকে ম্যানেজ করার জন্য চেষ্টা করে। কিন্তু সংবাদকর্মীকে তিনি ম্যানেজ করতে না পেরে এক পর্যায়ে রাগান্বিত হয়ে বলেন আমার কাছে হাজার হাজার নারী রয়েছে। আপনি এগুলো নিয়ে বেশি বাড়াবাড়ি করলে আমি আপনাকে নারী কেলেঙ্কারীতে ফাঁসিয়ে দিবো।

ঘটনাটি প্রশাসনের নিকট অবগত করলে তিনি জানান আপনার নিকট যথেষ্ট প্রমাণাদি রয়েছে তাই আমরা বিধি মোতাবেক আইনগত ব্যবস্থা নিব। আর এই বিষয়ে যত দ্রুত সম্ভব আমরা তদন্ত শুরু করব।

সর্বশেষ নিউজ