২৯, অক্টোবর, ২০২০, বৃহস্পতিবার

‘রাফাল ৫টি না ৫০০টি তাতে কিছু যায় আসে না, ভারতকে মোকাবেলার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত পাকিস্তান’

ভারতের ক্রমবর্ধমান সামরিক ব্যয় ও বাজেট নিয়ে উদ্বেগ থাকলেও দেশটির যেকোন আগ্রাসন মোকাবেলায় পাকিস্তান পুরোপুরি প্রস্তুত। দেশটি ফ্রান্সের কাছ থেকে রাফাল ফাইটার জোগাড় করলেও পাকিস্তানের নিরাপত্তা পরিস্থিতির হেরফের হয়নি। বৃহস্পতিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর জনসংযোগ বিভাগের (আইএসপিআর) প্রধান এ কথা বলেন।

পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবসের (১৪ আগস্ট) প্রক্কালে আয়োজিত ওই সাংবাদিক সম্মেলনে বহু বিষয়ে প্রশ্নের জবাব দেন আইএসপিআরের ডিজি মেজর জেনারেল বাবর ইফতেখার। ভারতের রাফাল সংগ্রহ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তাদের সামরিক ব্যয় বিশ্বের সর্বোচ্চ। তারা অস্ত্র প্রতিযোগিতায় লিপ্ত।

ডিজি বলেন, যেভাবে পাঁচটি রাফাল ফ্রান্স থেকে ভারতে এসেছে তাতেই বুঝা যায় দেশটি কতাটা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।

তবে কথা হচ্ছে, ভারত পাঁচটি নাকি ৫০০টি রাফাল কিনেছে তাতে কিছু যায় আসে না। আমরা সেজন্য পুরোপুরি প্রস্তুত এবং আমাদের সমার্থ্য নিয়ে আমাদের মনে কোন সন্দেহ নেই। আমরা এটা প্রমাণ করেছি এবং এসব রাফাল জেট তাতে খুব একটা হেরফের করতে পারবে না।

তবে হ্যা, আমাদের সঙ্গে তাদের প্রতিরক্ষা ব্যয় ও বাজেটের পার্থক্য এই অঞ্চলের প্রচলিত ভারসাম্যকে প্রভাবিত করছে। যখন এটা হয় তখন বিষয়গুলো অন্য ডোমেইনে চলে যায় এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এ ব্যাপারে নজর দিতে হবে।

পাকিস্তানে অনেক বলেন, প্রতিরক্ষা বাজেট অনেক বেশি। এখন বাজেটের ১৭ শতাংশ সশস্ত্র বাহিনীর জন্য। গত ১০ বছর ধরে পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা ব্যয় ক্রমাগত কমছে, বাড়ছে না। গত দুই বছর ধরে আমরা এমনকি মুদ্রাস্ফীতির বিষয়টিকেও বাজেটের ক্ষেত্রে বিবেচনায় আনিনি।

তাই বলে এটা আমাদের প্রস্তুতির উপর প্রভাব ফেলেনি। এই সীমিত সম্পদ নিয়েও আমরা শত্রুকে মোকাবেলা করার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত।

অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতের রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস

সংবাদ সম্মেলনের শুরুতেই মেজর জেনারেল ইফতেখার অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতের নিপীড়ন প্রসঙ্গে কথা বলেন।

তিনি বলেন, আজাদি অনেক বড় আশীর্বাদ। যে কাশ্মীরী মা পাকিস্তানি পতাকা মুড়িয়ে তার ছেলেকে দাফন করেছেন তার কাছে আজাদির গুরুত্ব জিজ্ঞেস করুন।

কাশ্মীরীদের সঙ্গে কোন বর্বরতাই বাদ রাখা হয়নি। সন্ত্রাস দমনের নামে তরুণদের হত্যা করে অজ্ঞাত স্থানে পুতে রাখা হচ্ছে।

কাশ্মীরীদের বিরুদ্ধে ভারতীয় বাহিনীর পেলেট গান ব্যবহার সাধারণ রীতিতে পরিণত হয়েছে এবং সেখানকার রাজনীতিকদের এক বছরের বেশি সময় ধরে আটকে রাখা হয়েছে।

বিশ্বের দরবারে কাশ্মীরীদের দুর্ভোগ তুলে ধরতে পাকিস্তান কোন চেষ্টার বাকি রাখছে না বলেও উল্লেখ করেন ডিজি আইএসপিআর। সূত্র: ডন

সর্বশেষ নিউজ