১, ডিসেম্বর, ২০২০, মঙ্গলবার

ফেব্রুয়ারি নাগাদ ভারতের অর্ধেক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হতে পারেন

মহামারী করোনাভাইরাস দাপট দেখাচ্ছে প্রতিবেশী দেশ ভারতে। দেশটিতে হাজার হাজার লোক মারা যাচ্ছেন এ রোগে। রোজ অন্তত ৫০ হাজার আক্রান্ত হচ্ছেন। এভাবে চলতে থাকলে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি নাগাদ দেশটির মোট ১৩০ কোটি জনসংখ্যার অন্তত অর্ধেক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন। এই পূর্বাভাস দিয়েছে দেশটির করোনাবিষয়ক সরকারি কমিটি।

কেন্দ্রীয় সরকারের করোনাভাইরাসবিষয়ক পূর্বাভাস কমিটির ওই সদস্য সোমবার জানান, ফেব্রুয়ারির পর সংক্রমণের গতি কমে আসতে পারে দেশটিতে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার জানায়, বুধবার সকাল পর্যন্ত ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা ৭৬ লাখ ৫১ হাজার। বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের পরই আক্রান্তের সংখ্যায় দ্বিতীয় স্থানে আছে ভারত।

যদিও ভারতে কোভিডের প্রথম ঢেউ ধীরে ধীরে স্তিমিত হয়ে আসছে সেপ্টেম্বরের মাঝ থেকে। ক্রমশ কমছে শনাক্তের সংখ্যা। বর্তমানে দৈনিক আক্রান্তের হিসাবে শানক্ত রোগীর সংখ্যা ৬০ হাজারের আশপাশেই ঘোরাঘুরি করছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৫৪ হাজার ৪৪ জনের।

কিন্তু বাস্তবে আরও অনেক বেশি মানুষই আক্রান্ত হয়েছেন বলে মনে করছে সরকারের করোনাভাইরাস পরিসংখ্যানবিষয়ক পূর্বাভাস কমিটি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে কমিটির সদস্য আইআইটি কানপুরের অধ্যাপক মণীন্দ্র আগরওয়াল জানিয়েছেন, তাদের গাণিতিক মডেল অনুযায়ী, ভারতের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৩০ শতাংশ মানুষ এখন কোভিড আক্রান্ত। আর এই সংখ্যা ফেব্রুয়ারির মধ্যে বেড়ে ৫০ শতাংশে চলে যেতে পারে।

ভারত সরকারের করা সেরোলজিক্যাল সার্ভে অনুযায়ী, ১৪ শতাংশ মানুষের দেহে করোনাভাইরাসের অ্যান্টিবডি আছে। কিন্তু কমিটির অঙ্কের হিসাব বলছে, সংখ্যাটি আরও বেশি।

কমিটি সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, সামাজিক দূরত্ব এবং মাস্ক পরার নির্দেশ যদি উপেক্ষা করা হয়, তা হলে তাদের পূর্বানুমান ছাড়িয়েও যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে এক মাসেই সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে ২৬ লাখ।

করোনায় আক্রান্তের তুলনায় ভারতে মৃত্যুর সংখ্যা কম। এ পর্যন্ত ১ লাখ ১৫ হাজার ৯১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে দেশটিতে। ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৭১৭ জনের।

সর্বশেষ নিউজ