২৩, নভেম্বর, ২০২০, সোমবার

ঢাকা-১৮’র ভোট ‘সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক হয়নি’: মাহবুব তালুকদার

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) বাংলাদেশের নির্বাচন তথা ভোট ব্যবস্থা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষা নেয়া উচিত বলে মন্তব্য করলেও ঢাকা-১৮ আসনের সদ্য অনুষ্ঠিত উপনির্বাচন ‘সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক হয়নি’ বলে দাবি করেছেন কমিশনের আরেক সদস্য নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

মাহবুব তালুকদার বলেছেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চেয়ে এই নির্বাচন আরও নিচে নেমে গেছে। এই নির্বাচন মোটেও অংশগ্রহণমূলক হয়নি।’

বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) দুপুরে আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনের নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘সকাল সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত আমি ঢাকা-১৮ নির্বাচনী এলাকার উপনির্বাচনে নিকুঞ্জ, খিলক্ষেত ও উত্তরার ১৪টি কেন্দ্রের ৭০টি বুথ পরিদর্শন করি। নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে আমার ধারণা হয়েছে, বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের চেয়ে এই নির্বাচন আরও নিচে নেমে গেছে। নির্বাচন মোটেও অংশগ্রহণমূলক হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘আমি বিরোধী দলের কোনও পোলিং এজেন্টকে কোনও কেন্দ্রে দেখিনি। কেবল কুর্মিটোলা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খিলক্ষেতের ভোটকেন্দ্রে একটি বুথে মহিলা পোলিং এজেন্টের উপস্থিতি দেখতে পাই।’

তিনি আরও বলেন, ‘পুরো নির্বাচনী এলাকায় একটি দলের পোস্টার, প্লাকার্ড ও বিলবোর্ড দেখা যায়, যা আচরণ-বিধি অনুযায়ী নির্বাচনের পূর্বে তুলে ফেলা উচিত ছিল। নির্বাচনকে আমি কেবল প্রার্থীর বা দলের জয়-পরাজয় বলে মনে করি না।’

মাহবুব তালুকদার বলেন, ‘নির্বাচন হচ্ছে গণতন্ত্রে উত্তরণের একমাত্র অবলম্বন। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ, অংশীদারমূলক ও গ্রহণযোগ্য না হলে ক্ষমতার হস্তান্তর স্বাভাবিক হতে পারে না। আর তখন দেশে অস্থিতিশীলতা, সামাজিক অস্থিরতা ও ব্যক্তির নৈরাশ্য বৃদ্ধি পায়। এর ফলে নৈরাশ্য থেকে নৈরাজ্য সৃষ্টি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘নৈরাজ্য প্রবণতা কোনও গণতান্ত্রিক দেশের জন্য মোটেও কাম্য নয়। আমি নির্বাচন প্রক্রিয়ায় সংস্কার প্রত্যাশা করি। তা না-হলে দেশ অনিশ্চিত গন্তব্যের দিকে অগ্রসর হতে পারে।’

এদিন দুপুর ১২টার দিকে ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনে আইই এস স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রে ভোট প্রদান ও কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা সাংবাদিকদের বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ৪-৫ দিনেও ভোট গণনা শেষ করতে পারে না। আর আমরা ইভিএমে ৪-৫ মিনিটেই ফল ঘোষণা করে দিতে পারি। আমাদের নির্বাচন ব্যবস্থা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের শিক্ষাদীক্ষা নেয়া উচিত।’

প্রায় সব কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম ও সাধারণ ছুটি ঘোষণা প্রসঙ্গে কে এম নূরুল হুদা বলেন, ‘ইভিএমের সঙ্গে ভোটারদের পরিচিতি কম হতে পারে। আমি সঠিক জানি না। এটা বিশ্লেষণের বিষয়। তবে এটা সব ক্ষেত্রে সঠিক না। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ৮১ শতাংশ ভোট পড়েছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একটু কম হয়। ভোটাররা আসছেন না কেন এটা তারাই ভালো বলতে পারবেন।’

কেন্দ্র দখল নিয়ে বিএনপি করা অভিযোগ প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, ‘একটি কেন্দ্রও কেউ দখল করেনি। কেউ পাঁয়তারা করেনি। বিএনপির পোলিং এজেন্ট কেন্দ্রে যায়নি। আমি খোঁজ নিয়েছি। আমার প্রিজাইডিং অফিসার আমাকে জানিয়েছে, বিএনপির পোলিং এজেন্ট কেউ তার কাছে রিপোর্ট করেনি।’

সর্বশেষ নিউজ