১, ডিসেম্বর, ২০২০, মঙ্গলবার

পারিবারিক কলহের কারনে ধর্মীয় নীতিতে পরিবর্তন আনে জঙ্গি শান্ত

এসএম বাচ্চু,তালা: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের শেরখালি উকিলপাড়ায় কথিত জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাবের অভিযানে আটক সন্দেহভাজন ৪ জঙ্গির মধ্যে আমিনুল ইসলাম শান্তর বাড়ি সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার দক্ষিণ নলতা গ্রামে।
এদিকে আমিনুল ইসলাম শান্ত পিতা অবসর প্রাপ্ত ব্যাটালিয়ান সদস্য বজলুর রহমান বাড়ি যশোরের মনিরামপুর উপজেলায় হলেও তালার দক্ষিনলতা গ্রামে দীর্ঘবছর ধরে মায়ের সাথে বসবাস করতো শান্ত।
প্রকাশ,গত ৫ নভেম্বর শাহজাদপুরের শেরখালি উকিলপাড়ায় প্রকৌশলী শামসুল হক রাজার (শিক্ষক ফজলুল হক সাহেবের বাড়ি সংলগ্ন) বাড়িটি ছাত্র পরিচয়ে ভাড়া করে ওই চার যুবক।

পরে সেখানে জঙ্গি তৎপরতা শুরু করে। বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) রাতে রাজশাহীর শাহ মখদুম থানা এলাকায় নব্য জেএমবির আমির মাহবুবসহ চার জনকে আটক করে র‌্যাব-৫। আটক আমিরের তথ্যের ভিত্তিতে শাহজাদপুরে অভিযান চালান র‌্যাব সদস্যরা। শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টায় বাড়িটি ঘিরে রাখার সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে তাদের লক্ষ্য করে জঙ্গিরা কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে। বাড়িতে বড় ধরনের অস্ত্রের মজুদ আছে এমন সন্দেহে র‌্যাব জোড়ালোভাবে অভিযানের প্রস্তুতি নেয়। পরে আত্মসমর্পনের নির্দেশ দিলে সকাল সাড়ে ১০টার পর চার জঙ্গি র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পন করে। ওই চার জন জঙ্গির মধ্য আমিনুল ইসলাম শান্তও আটক হন। এসময় ওই বাড়ি থেকে বিপুল পরিমাণ জিহাদি প্রশিক্ষণমূলক বইপুস্তক, দুটি বিদেশি পিস্তল ও বোমা তৈরির বেশকিছু সরঞ্জাম করে র‌্যাব।
খলিলনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান রাজু জানান, সিরাজগঞ্জে জঙ্গি আস্তানা থেকে শুক্রবার সকালে র‌্যাবের অভিযানে আটক আমিনুল ইসলাম শান্ত’র বর্তমান ঠিকানা তালার দক্ষিণনলতা গ্রামে। এই গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য ও শিক্ষক জি.এম. মোস্তাফিজুর রহমান তিতু তার মামা এবং একই গ্রামের শরিফুল মোড়ল তার শশুর।

আমিনুল ইসলাম শান্ত’র মামা জি.এম. মোস্তাফিজুর রহমান তিতু জানান, তালা থানায় কর্মরত থাকাবস্থায় আনসার ব্যাটালিয়ান সদস্য মনিরামপুর সদরের বজুুলর রহমানের সাথে তার বোন রোকসানা খাতুন বিথির বিয়ে হয় এবং তাদের একমাত্র সন্তান আমিনুল ইসলাম শান্ত।বহু বিবাহর হোতা প্রতারক বজলু অনত্র বিয়ের পর ছেলে শান্ত ও স্ত্রী’র খোজখবর নেয়া বন্ধ করে দেয়। ফলে বিথি তার সন্তান আমিনুল ইসলামকে নিয়ে আমাদের এখানে থাকতো। আমিনুল ছোট বেলা থেকে সহজ-সরল প্রকৃতির ছিল। সে তালা বি.দে. সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে সফলতার সাথে এসএসসি, তালা সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি এবং সাতক্ষীরা সরকারি কলেজ থেকে অনার্স ডিগ্রি অর্জন করে। অনার্স পাশ করার পর আমিনুল ইসলাম প্রেমজ সূত্রে একই গ্রামের শরিফুল মোড়লের মেয়ে হাবিবা খাতুনকে বিয়ে করে। এই বিয়ে নিয়ে পারিবারিক বিরোধ সৃষ্টি হলে সে ও তার মা বিগত প্রায় ২বছর ধরে আলাদা বসবাস শুরু করে।

এসময়, সাংসারিক কারনে আমিনুল ইসলাম শান্ত খুলনায় ফুড পান্ডা নামের একটি খাদ্য সরবারহকারী প্রতিষ্ঠানে ডেলিভারী বয়’র চাকরি শুরু করে। এখানে চাকরি করাকালে শান্ত’র ধর্মীয় নীতি পালনে পরিবর্তন আসে এবং মামা বাড়ির সাথে তার যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। খুলনায় চাকরি করাকালে সে বিপথগামী হতে পারে বলে জি.এম. মোস্তাফিজুর রহমানের ধারণা।
এবিষয়ে তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল বলেন, আমিনুল ইসলাম শান্ত র‌্যাবের অভিযানে আটক হবার পর তার পরিবারের বিষয়ে ব্যাপক খোজ-খবর নেয়া হচ্ছে।

সর্বশেষ নিউজ