১৪, জুন, ২০২৪, শুক্রবার
     

লাশের সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক, নিষিদ্ধ হচ্ছে সিমলার সিনেমা

ম্যাডাম ফুলি’খ্যাত অভিনেত্রী শিমলা ও কিশোর অভিনেতা মামুনকে নিয়ে ২০১৪ সালে শুরু হয় ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’ সিনেমার কাজ। দীর্ঘ ৭ বছরের জার্নি শেষে সিনেমাটি শেষ হয় এবং সেন্সর বোর্ডে জমা পড়ে। কিন্তু সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা সিনেমাটিকে নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত

নিয়েছেন। কারণ হিসেবে তারা উল্লেখ করেছেন, সিনেমার গল্পে লাশের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক, নায়ক-নায়িকার অসম প্রেম, এবং মাত্রাতিরিক্ত গালাগালি। এগুলো সাধারণ দর্শকের দেখার উপযুক্ত নয় বলে মনে করেন সেন্সর বোর্ডের সদস্যরা। তাই নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত।

নাম না প্রকাশের শর্তে একজন বোর্ড সদস্য বলেন, ছবিটিতে অনেক বেশি পরিমাণে গালিগালাজ রয়েছে। আবার এর গল্পে এমন কিছু বিষয় দেখানো হয়েছে যা আমাদের সমাজ সংস্কৃতির সঙ্গে সাংঘর্ষিক। এ ছবি সেন্সর দিলে আমাদের সমাজে বিরূপ প্রভাব পড়বে।

তরুণ নির্মাতা রুবেল আনুশের প্রথম সিনেমা এই ‘প্রেম কাহন’। ২০১৪ সালে এই সিনেমার কাজ শুরু করেছিলেন তিনি। তখন এর নাম ছিল ‘নিষিদ্ধ প্রেমের গল্প’। সিনেমাটির কেন্দ্রীয় দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন নায়িকা সিমলা এবং কিশোর অভিনেতা মামুন। এছাড়াও রয়েছেন আবুল হায়াত, রুমাই নোভিয়া, পুলক, বাপ্পী, লাবণী, সাদিয়া প্রমুখ।

সিনেমাটির বিষয়ে নির্মাতা রুবেল আনুশ বলেন, এখনো বোর্ডের চিঠি পাইনি। তবে আন-অফিসিয়ালি খবরটি শুনেছি। আমার সিনেমায় কোনো অ্যাডাল্ট দৃশ্য রাখিনি। গালি ছিল, তবে তা মিউট করা হয়েছে। আর তারা যে অংশ সংশোধন করতে বলেছেন, সেটা করলে গল্প থাকবে না। সিনেমা মুক্তির বিষয়ে তিনি বলেন, প্রথম সিনেমাটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেওয়ার ইচ্ছা ছিল। যেহেতু তা আর হচ্ছে না, তাই বাধ্য হয়ে অনলাইনেই সিনেমাটি মুক্তি দেওয়া হবে।

               

সর্বশেষ নিউজ