২৯, মে, ২০২৪, বুধবার
     

প্রশংসা কুড়াচ্ছে আঞ্চলিক গীত

বিনোদন রিপোর্ট

ব্যতিক্রম লিরিক ও মিউজিক কম্পোজিশনে নিজের সম্ভাবনার জানান দিয়েছেন সোহান আলী। পাশাপাশি কণ্ঠ দিয়েও নিজেকে মেলে ধরছেন ক্রমশ। প্রজন্মে আধুনিক হলেও তার মনে মিশে আছে শেকড়ের টান। তাই নিজ অঞ্চল উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী গীতগুলো নিয়ে বিশেষভাবে কাজ করতে চান সোহান। বছর খানেক আগে ‘জলপাই’ নামের একটি গীত প্রকাশ করেন, সেটা শ্রোতাদের বেশ সাড়া পেয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায় নতুন আঞ্চলিক গীত নিয়ে হাজির সোহান। এবারের গান ‘তেঁতুল’। আগের মতো এটাতেও নিজের লেখা-সুরে মৌলিক একটি অংশ যোগ করেছেন। তবে সেই মৌলিক অংশটি গেয়েছেন ইসমাইল হোসেন। গত ২৮ সেপ্টেম্বর নিজের ইউটিউব চ্যানেলে গানটি ভিডিও আকারে প্রকাশ করেছেন সোহান আলী। যেখান থেকে মিলছে দারুণ প্রশংসা।

তরুণ এই সংগীতশিল্পী জানান, ‘তেঁতুল’ গীতটির কথা সরল; কিন্তু এর মর্মার্থ অনেক গভীর। সোহানের ভাষ্য, ‘এখানে ফেরিওয়ালা বলতে সৃষ্টিকর্তাকে বোঝানো হয়েছে। তার সঙ্গে মানুষ বা সৃষ্টির একটা কথোপকথন। এই মর্মার্থ অনুযায়ী আমি মৌলিক অংশটি বানিয়েছি। আর ইসমাইল হোসেনের গায়কী দারুণ। তাকে দিয়ে আরেকটু ভিন্নতা আনার চেষ্টা করলাম।’

আঞ্চলিক গীত নিয়ে ধারাবাহিক কাজের প্রসঙ্গে সোহান বলেন, ‘‘আমি উত্তরবঙ্গের সন্তান। এ অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী অনেক গীত আছে। কিন্তু সেগুলো কখনও সেভাবে মেইনস্ট্রিম মিডিয়ায় উঠে আসেনি। তাই নিজের মৌলিক কাজের পাশাপাশি প্রায় হারিয়ে যাওয়া গীতগুলো প্রজন্মের সামনে আনতে চাই। সেটার দ্বিতীয় প্রয়াস ‘তেঁতুল’। এটি রাজবংশী গীত বলে জানতে পেরেছি। তবে এর রচয়িতার সঠিক পরিচয় খুঁজে পাইনি।’’

উল্লেখ্য, নিজের তৈরি করা বেশ কিছু গান ইতোমধ্যে প্রকাশ করেছেন সোহান আলী। এর মধ্যে ‘চল দোতং পাহাড়’ অনেকটা ভ্রমণপিপাসুদের ‘থিম সং’-এ পরিণত হয়েছে। বর্তমানে আরও দুটি গান পুরোপুরি প্রস্তুত। কিছু দিনের ব্যবধানেই সেগুলো প্রকাশ করবেন বলে জানালেন এই তরুণ।

               

সর্বশেষ নিউজ