২৩, এপ্রিল, ২০২৪, মঙ্গলবার
     

রাশিয়ার পরীক্ষিত বন্ধু বাংলাদেশ : ভ্লাদিমির পুতিন

ক্রাইমভিশন ডেস্ক:

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, রাশিয়া শুধু বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করে না। প্রকল্পের পুরো সময়কাল সব ধরনের কারিগরি সহযোগতি করে যাবে। এই প্রকল্প বাংলাদেশের বর্ধনশীল অর্থনীতির চাহিদা মেটাতে ভূমিকা রাখবে। ভারতও এই প্রকল্প বাস্তবায়নে সহোযোগিতা করছে। বাংলাদেশ রাশিয়ার পরীক্ষিত বন্ধু।

আজ বৃহস্পতিবার রূপপুর প্রকল্প এলাকায় ইউরেনিয়াম হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার যে কয়েকটি দেশ প্রথম স্বীকৃতি দিয়েছিল তার মধ্যে সোভিয়েত ইউনিয়ন প্রথম। গত বছর বঙ্গবন্ধুর মস্কো সফর সুবর্ণজয়ন্তী পালিত হয়। রূপপুর প্রকল্পে সরাসরি ২০ হাজার বাংলাদেশির কর্মসংস্থান হয়েছে। এছাড়া অন্যান্য অনেক কোম্পানির এই প্রকল্পে কাজ করছে। যেটাও কর্মসংস্থানে ভূমিকা রাখছে। এই বিদ্যুৎকেন্দ্র দেশের বিদ্যুৎ চাহিদার ১০ শতাংশ পূরণ করবে। ২০২৬ সালে পুরো বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু হবে। এই বিদ্যুৎকেন্দ্র জীবাশ্ম জ্বালানির ওপর নির্ভরতা কমাবে। ফলে দেশের পরিবেশ সুরক্ষিত থাকবে।
পুতিন বলেন, রাশিয়া বিদ্যুৎকেন্দ্রের জ্বালানি সরবরাহ করে যাবে। অবশ্যই কার্বন নিঃসরণ কম হবে।

যৌথভাবে কাজ করছে, ৩০ হাজারের লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। এতে আমাদের ভারতীয় বন্ধুগণ সহযোগিতা করেছে। তাদেরকেও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এখানে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার হচ্ছে। নিরাপদ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। আমরা বাংলাদেশের সমর্থন করবো, পাশে থাকবো, কারিগরি সহযোগিতা দেবো।

               

সর্বশেষ নিউজ