১৪, জুন, ২০২৪, শুক্রবার
     

শ্রীনগরে ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্র নিরব হত্যার ঘটনায় ৪ জন গ্রেফতার

মোহন মোড়ল,শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি:
শ্রীনগরে ছাত্রীদের উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় ছুরিকাঘাতে স্কুলছাত্র নিরব হোসেন (১৭) হত্যার ঘটনায় কিশোর গ্যাংয়ের ৪ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ।

শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর এ বিষয়ে নিশ্চিত করেছেন। অভিযুক্তরা হলো উপজেলার বাঘড়া মাগডাল এলাকার মনু মিয়ার ছেলে রাজিব (১৭), আক্কাস আলী মৃধার ছেলে তাহসান (১৪), সুমির ছেলে রুদ্র (১৪) ও ভাগ্যকুল ইউনিয়নের পশ্চিম কামারগাঁও গ্রামের রাশেদের ছেলে শাওন (১৪)

গত শুক্রবার রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করেন। এর আগে ঘটনাস্থলে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে সংঘবদ্ধ অভিযুকারীদের শনাক্ত করা হয়।
মুন্সীগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শ্রীনগর সার্কেল) মো. তোফায়েল হোসেন সরকার বলেন, আটককৃতদের যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। গত শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে উপজেলার কামারগাঁও চৌধুরীবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শহিদ মিনারের সামনে নিরব হোসেনকে ছুরিকাঘাত করা হলে সন্ধ্যার দিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনার সময় তার মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা জানায়, গত বৃহস্পতিবার ভাগ্যকুলের কামারগাঁও এলাকায় কাজী ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে কিশোরগ্যাংয়ের অন্যতম সদস্য পার্শ্ববর্তী বাঘড়া ইউনিয়নের মাগডালের মো. অরেফিনের নেতৃত্বে কয়েকজন বখাটে স্কুল ছাত্রীদের উত্যক্ত করছিল। এ সময় স্কুলছাত্র নিরব হোসেন ও কাজী অহিদুল উত্যক্তের প্রতিবাদ করায় বখাটেদের সাথে তাদের বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে বখাটেরা দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে সেখান থেকে চলে যায়।
এর জের ধরে পরদিন (শুক্রবার) বিকালে বিকাল কাজী ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে প্রায় একশত গজ দূরত্বে কামারগাঁও চৌধুরীবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শহিদ মিনারের পাশে এসে বখাটে আরেফিনসহ কয়েকজন মিলে নিরব হোসেনকে ছুরিকাঘাত করে খালে ফেলে দেয়।
স্থানীয়রা নিরবকে উদ্ধার করে হাসপাতালে আনলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। হামলার সময় নিরবের বন্ধু কাজী অহিদুল ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে প্রাণ বাচায়। নিরব হোসেন চাঁদপুরের মৃত দেলোয়ার হোসেনের পুত্র। বাবার মৃত্যুর নিরবের মা তার ২ সন্তানকে নিয়ে বাবার বাড়ী কামারগাঁও চলে আসেন। নিরব কামারগাঁও কাজী ফজলুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শেণী পর্যন্ত পড়ালেখা করার পর লৌহজংয়ে তার খালার বাড়িতে চলে যায় এবং গত বছর লৌহজং পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে ফেল করে। এ বছর কামারগাঁও মামার বাড়ীতে থেকে পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিল।

পরীক্ষা শুরু হওয়ার কয়েকদিন আগে নিরবের খুনের ঘটনায় তার বিধবা মাসহ পরিবারে শোঁকের ছায়া নেমে এসেছে। এই হত্যাকান্ডের ঘটনার সাথে জরিতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন এলাকাবাসী।

               

সর্বশেষ নিউজ