২৩, এপ্রিল, ২০২৪, মঙ্গলবার
     

হিজাব না পড়ায় আমার চুল কেটে নিয়েছে আমি আর স্কুলে যামুনা

সিরাজদিখান প্রতিনিধি:
হিজাব না পড়ায় আমার চুল কেটে নিয়েছে আমি আর স্কুলে যামুনা বলে কেদে চলেছেন মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার সৈয়দপুর আব্দুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী মাইসা জাহান।

আজ ২৮ ফেব্রুয়ারী বুধবার মাইসা আক্তার সহ আরও ১০/১২ জনের চুল কেটে নিলেন বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান এবং স্বাস্থ্য ও সুরক্ষা বিষয়ের শিক্ষিকা রুমিয়া সরকার । আজ সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী মাইসা জাহান, তানজিলা আক্তার, আনীল আক্তার, তাসফিয়া, মাহাদিয়া, সুমাইয়া ও ইফাসগ ১০-১২ হিজাব পড়ে না আসার কারণে তাদের চুল কেটে নেয়া হয় বলে জানান তারা । মাইসা জাহান ও তানজিলা আক্তারের বাড়ী সৈয়দপুরে, আনীলা আক্তার ও তাসফিয়ার বাড়ী মোহাম্মদপুরে, মাহাদিয়া ও সুমাইয়ার বাড়ী মধুপুরে, ইফার বাড়ী বাঐখোলা ।

এ ঘটনায় এলাকায় চাপা উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে । নিউজটি এখন টক অব দা টাউনে পরিনত হয়েছে ।

মাইসা জাহান বলেন, আমার একটাই হিজাব । ঐ হিজাবটা ময়লা হয়ে গেছে তাই ধুয়ে দিয়েছি এজন্য পড়ে যেতে পারিনি । ম্যাডামকে অনেক অনুরোধ করে বলেও আমি রক্ষা পাইনি ম্যাডাম আমাদের চুল কেটে দিল । তাই আমি আর স্কুলে যামু না ।

মাইসা জাহানের পিতা কহিনুর বলেন, আমার মেয়ে অন্যায় করেছে বললেই হত আমরা শাসন করতাম । তাকে চুল কেটে ন্যাড়া বানিয়ে দিল । তাই আমার মেয়েটা ভেঙ্গে পড়েছে ও আর স্কুলে যেতে চাচ্ছে না ।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক শিক্ষক বলেন, বর্তমান সভাপতি ইঞ্জিনিয়র মোঃ গোলাম হোসেন সাহেব সভাপতি হওয়ার পর ছেলে মেয়েদের ড্রেসকোড চেঞ্জ করেছে এ ব্যাপারে তিনি শিক্ষকদের খুব চাপে রাখেন এবং এ বিষয়ে যে কোন এ্যাকশন নিতে বলেন ।

অভিযুক্ত শিক্ষিকা রুমিয়া সরকারকে মোবাইলে পাওয়া যায় নি ।

সৈয়দপুর আব্দুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মিয়া মোঃ ফরিদ বলেন, ক্লাসেই কেচি ছিল তাই হাতের কাছে পেয়ে এ কাজ করে ফেলেছে । তবে কাজটা অন্যায় করেছে । আমরা ব্যবস্থা নিব ।

সিরাজদিখান উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাব্বির আহমেদ বলেন, আমরা ঘটনা জেনেছি । ইতিমধ্যে স্কুল কর্তৃপক্ষ ও অভিভাবকদের সাথে যোগাযোগ করছি । অভিযুক্ত শিক্ষিকাকে সাময়িক বরখাস্ত করার প্রক্রিয়া চলছে । কাল সরেজমিনে গিয়ে দেখব । প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

               

সর্বশেষ নিউজ